সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ, বাবার লাশ দাফনে সন্তানদের বাধা

নোয়াখালী জেলার মানচিত্র

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় সম্পত্তি–সংক্রান্ত বিরোধের জেরে বাবার লাশ দাফনে সন্তানদের বাধা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে এলাকাবাসীর মধ্যস্থতায় মৃত্যুর ২২ ঘণ্টা পর গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় লাশটি দাফন করা হয়েছে।

মৃত ব্যক্তির নাম আবদুল মান্নান। তিনি উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের বানসা গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। কয়েক বছর আগে জমির বণ্টন নিয়ে দুই ছেলে ও দুই মেয়ের সঙ্গে তাঁর বিরোধ তৈরি হয়। বার্ধক্যজনিত কারণে গত সোমবার তিনি মারা যান।

মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান বলেন, মৃত্যুর আগে আবদুল মান্নান তাঁর ছোট ছেলে আবুল কালামের স্ত্রী জাহানারা বেগম ও সন্তানদের নামে ৩৯ শতাংশ জমি রেজিস্ট্রি করে দেন। এ নিয়ে তাঁর অন্য দুই ছেলে ও দুই মেয়ের সঙ্গে বিরোধ তৈরি হয়।

গত সোমবার রাত আটটার দিকে বার্ধক্যজনিত কারণে বৃদ্ধ আবদুল মান্নানের মৃত্যু হয়। এরপর তাঁর লাশ দাফনে দুই ছেলে, দুই মেয়ে ও নাতিরা বাধা দেন। ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান বলেন, ঘটনাটি তিনি জানার পর ওই বাড়িতে যান। এরপর স্থানীয় ইউপি সদস্য সালাউদ্দিনসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মধ্যস্থতায় বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিলে আবদুল মান্নানের সন্তানেরা লাশ দাফনে রাজি হন। পরে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়।

এ বিষয়ে চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন বলেন, জমি–সংক্রান্ত জটিলতার কারণে বানসা গ্রামে এক ব্যক্তি মারা যাওয়ার পর লাশ দাফনে সন্তানদের বাধা দেওয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে বিষয়টি নিয়ে থানায় কেউ অভিযোগ করেননি।