তাঁরা আরও বলেন, কিছুদিন আগে সারা দেশে মেডিকেল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলো। এতে ৩৭টি মেডিকেল কলেজে ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের আটটি আসন বরাদ্দ রয়েছে। তবে এ ক্ষেত্রে চারটি আসন ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীরদের দেওয়া হয়েছে। বাকি চারটিতে অ-আদিবাসী বরাদ্দ পেয়েছেন। অবিলম্বে ওই চার আসন ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফলাফল পুনরায় বিবেচনায় নিয়ে বরাদ্দ দিতে হবে। তাঁদের এগিয়ে যাওয়ার জন্য সুযোগ দরকার। এ জন্য প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে আদিবাসীদের ৫ শতাংশ কোটা পুনর্বহাল রাখতে হবে। তাঁদের সেই অধিকার আবার ফিরিয়ে দিতে হবে। সেই লক্ষ্যে তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানাচ্ছেন।

পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তরুণ মুণ্ডার সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক সূভাষ চন্দ্র হেমব্রম, সদস্য বিভূতিভূষণ মাহাতো, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সুশান্ত কুমার মাহাতো, সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মীণ সরদার প্রমুখ। এতে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য দেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির রাজশাহী মহানগরের নির্বাহী সদস্য তামিম শিরাজী। আর সভাপতিত্ব করেন আদিবাসী ছাত্র পরিষদের সভাপতি নকুল পাহান।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, আদিবাসীদের জন্য ১৯৮৫ সাল থেকে সরকারি চাকরিতে ৫ শতাংশ কোটা সংরক্ষিত ছিল। ২০১৮ সালে কোটা সংস্কার আন্দোলনের পর কোটা বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এর পর থেকে বিভিন্ন চাকরিতে কোটার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তাঁরা।