উপজেলা প্রশাসন জানায়, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আছমা এর আগে একই ইউপি থেকে তিনবার সংরক্ষিত নারী সদস্যপদে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পাঁচ হাজার ভোট পান। আছমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন চারজন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আরমান মিয়া (ঘোড়া) পেয়েছেন ৪ হাজার ৪৪৪ ভোট। ইউপিতে মোট ভোটার ১৯ হাজার ৪ জন। মোট ভোট পড়েছে ১৩ হাজার ৮৯৪টি।

আছমা আক্তার বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন ইউপি সদস্য হিসেবে এলাকার মানুষের পাশে ছিলাম। এখন চেয়ারম্যান হয়েছি। তাই আরও ভালোভাবে মানুষের পাশে থেকে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। কাজের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের হাতকে শক্তিশালী করব। আমি এলাকার নারীদের উন্নয়নে কাজ করতে চাই।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রাশেদ বলেন, সরাইলের ইতিহাসে এবারই প্রথম চেয়ারম্যান পদে একজন নারী নির্বাচিত হয়েছেন। এটি নারী উন্নয়ন এবং প্রগতির জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করতে সক্ষম হবে।

সরাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিক উদ্দিন ঠাকুর বলেন, নারী নেতৃত্ব বাড়লে নারীদের তথা দেশের উন্নয়ন বাড়বে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চান দেশের নানা ক্ষেত্রে নারী নেতৃত্ব বৃদ্ধি পাক। তিনি আছমা আক্তারের বিজয়ে আনন্দিত এবং আশাবাদী।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন