default-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার অরুয়াইল পুলিশ ক্যাম্পে হামলার ঘটনায় অরুয়াইল ইউনিয়ন শাখা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তালেবের তিন ছেলে জড়িত বলে অভিযোগ করেছে পুলিশ।

এর মধ্যে এক ছেলে পুলিশের করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। তবে আজ রোববার আবু তালেব বলেছেন, তাঁর তিন ছেলে ওই হামলার সঙ্গে জড়িত নন। এর আগে গতকাল শনিবার বিকেলে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তিন ছেলেকে নির্দোষ দাবি করেন তিনি।

মামলার এজাহার, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২৭ মার্চ বেলা দুইটার দিকে আবু তাহের, হোসাইন আহমেদ, মাহমুদুর রশিদ, অলিউল্লাহ ও জাকারিয়ার (আবু তালেবের ছেলে) নেতৃত্বে কয়েক হাজার হেফাজতের নেতা-কর্মী ও সমর্থক ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের বিরোধিতা করে লাঠিসোঁটা নিয়ে অরুয়াইল বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করেন। অরুয়াইল আবদুস সাত্তার ডিগ্রি কলেজ মাঠে সমাবেশও করা হয়। সমাবেশ চলাকালে বেলা সাড়ে তিনটার দিকে অরুয়াইল পুলিশ ক্যাম্পে হামলা চালানো হয়। এতে সরাইল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কবীর হোসেনসহ অন্তত ২০ জন পুলিশ সদস্য আহত হন। এ ঘটনার পরের দিন অরুয়াইল পুলিশ ক্যাম্পটি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় সরাইল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সজল চন্দ্র মজুমদার বাদী হয়ে ৩১ মার্চ রাতে ৬৫ জনের নাম উল্লেখ করে সরাইল থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে প্রায় ১ হাজার ২০০ জনকে। মামলার এজাহারে আবু তালেবের ছেলে মো. ইসমাইলের নাম আছে। অপর দুই ছেলে জাকারিয়া ও জয়নাল আবেদিন পুলিশের সন্দেহের তালিকায় আছেন।

এ বিষয়ে আবু তালেব বলেন, ‘আমার কোনো ছেলে হেফাজতের কোনো কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত না। এক ছেলে আগে (জয়নান আবেদিন) বিএনপির সঙ্গে যুক্ত ছিল, এখন নেই। অরুয়াইল বাজারে আমার ১৫০টি দোকান আছে। ছেলেরা দোকানগুলো রক্ষার জন্য ২৭ মার্চ বাজারে গিয়েছিল। একটি মহল আমার সুনাম ক্ষুণ্ন করার জন্য এক ছেলেকে মামলায় জড়িয়েছে। অন্য দুই ছেলেকে জড়ানোর চেষ্টা করছে।’ তিনি আরও বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের আগামী নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চান। এ জন্য অনেকেই তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সরাইল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের মামলায় আসামি করা হয়েছে। আজ পর্যন্ত এ মামলায় ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে দুজন এজাহারভুক্ত আসামি। অন্যরা সন্দেহভাজন আসামি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (সরাইল সার্কেল) আনিছুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, অরুয়াইল পুলিশ ক্যাম্পে হামলার ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকায় আবু তালেবের এক ছেলের নাম এজাহারভুক্ত হয়েছে। অপর দুই ছেলের বিরুদ্ধেও অভিযোগ উঠেছে। এখানে দলীয় পরিচয় নয় বরং অপরাধ বিবেচনায় নিয়ে আসামি করা হয়েছে। ভিডিও ফুটেজ ও স্থিরচিত্র দেখে এবং অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে ঘটনার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে। ওই হামলার ঘটনায় জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন