বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর আগে একই দাবিতে আজ সকালে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শাহবাজপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এলাকাবাসী মানববন্ধন করেন। শাহবাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান রাজিব আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা দুটি ইউনিয়নের লোকজন বুধবার থেকে টানা ২৭ ঘণ্টা, আবার শুক্রবার রাত একটা থেকে টানা ১৭ ঘণ্টা বিদ্যুৎহীন ছিলাম। বিদ্যুৎ বিভাগের এখানকার নির্বাহী প্রকৌশলী আমাদের ফোন ধরেন না। বিদ্যুৎ না থাকার বিষয়টি আগে থেকে প্রচারও করেন না। আমরা দিনের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গড়ে ৩ ঘণ্টাও বিদ্যুৎ পাই না। তাই জনগণের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আমিও এ আন্দোলনে অংশ নিয়েছি। বলতে পারেন নেতৃত্ব দিয়েছি।’

ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, ‘দুটি ইউনিয়নের লোকজন বুধবার থেকে টানা ২৭ ঘণ্টা, আবার শুক্রবার রাত একটা থেকে টানা ১৭ ঘণ্টা বিদ্যুৎহীন ছিলাম। বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আমাদের ফোন ধরেন না।’
default-image

ইউপি চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘দীর্ঘ সময় ধরে বিদ্যুৎ না থাকায় এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লোকজন ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শাহবাজপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জড়ো হয়েছিলেন। তাঁদের উদ্দেশ্য ছিল মহাসড়ক অবরোধ করা। পরে আমি তাঁদের শান্ত করেছিলাম। কিন্তু আজ আমিও মাঠে নামতে বাধ্য হয়েছি।’

সরাইল থানার ওসি আসলাম হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, মহাসড়ক অবরোধের ঘটনা শুনেই তিনি দ্রুত শাহবাজপুর উপস্থিত হয়ে লোকজনকে শান্ত করেছেন। কিছুক্ষণ পরই মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হয়।

জানতে চাইলে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিউবো) সরাইল উপজেলা কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী (বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ) এ জেড এম আনোয়ার জামান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আশুগঞ্জ উপকেন্দ্রে সমস্যা দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া যে লাইনে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়, তা অনেক পুরোনো। যার কারণে অনেক সময় পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।’ তিনি বলেন, ৩৩ কিলোভোল্ট লাইনে একাধিক সমস্যা থাকার কারণে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। কিছুদিনের মধ্যে আশা করা যায় সব স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন