default-image

জামালপুরের সরিষাবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে একটি কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছ থেকে এক হাজার ব্যালট নিয়ে নৌকায় সিল মারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর ওই কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। ব্যালট দিয়ে ‘সহায়তা করার’ অভিযোগে পুলিশ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে আটক করেছে।

সরিষাবাড়ী আরইউটি উচ্চবিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে আজ শনিবার সকাল ৯টার দিকে ব্যালট নিয়ে নৌকায় সিল মারার ঘটনা ঘটে। পরে বেলা ২টায় কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়। এই ভোটকেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৭৬৭।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পৌর শহরের আরামনগর বাজার এলাকার সরিষাবাড়ী আরইউটি উচ্চবিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সকাল ৯টার দিকে আওয়ামী লীগের লোকজন কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মাহবুবুল আলম তরফদারের কাছ থেকে এক হাজার ব্যালট পেপার নেন। পরে ওই সব ব্যালট পেপারে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মনির উদ্দিনের নৌকা প্রতীকে সিল মারেন। এ বিষয়ে ভোটারদের মধ্যে গুঞ্জন শুরু হয়।

এরপর বিষয়টি ভোটকেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মাহবুবুল আলম তরফদার প্রশাসনকে জানান। পরে বেলা ২টায় প্রিসাইডিং কর্মকর্তা কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করেন। মাহবুবুল আলম তরফদারের দাবি, আওয়ামী লীগের লোকজন তাঁর কাছ থেকে জোর করে এক হাজার ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়েছেন।

যদিও আওয়ামী লীগের নেতা–কর্মীদের ব্যালট পেপার দিয়ে সহযোগিতা করার অভিযোগে পুলিশ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মাহবুবুল আলম তরফদারকে আটক করেছে।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাকসুদ আলম প্রথম আলোকে বলেন, ১০০০ ব্যালট পেপারে নৌকার পক্ষে সিল মারায় কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে আটক করা হয়েছে।

সরিষাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু মো. ফজলুল করিম বলেন, এ ঘটনায় প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ও আরও একজনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন