বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ ওপেন ওয়াটার সুইমিং ও জেলা ক্রীড়া অফিস সাঁতার কেটে যমুনা পাড়ি দেওয়ার এই আয়োজন করেছিল। ক্রীড়া পরিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) এস আই এন ফেরদৌস আলম বলেন, ২০ থেকে ৫৫ বছর বয়সী ১৩ জন সাঁতারু দুপুর সাড়ে ১২টায় মহেশপুর ঘাট থেকে সাঁতার শুরু করেন। এর মধ্যে ১১ জন যমুনা পাড়ি দিয়ে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি ঘাটে পৌঁছান।

দুপুর সাড়ে ১২টায় মহেশপুর ঘাট থেকে সাঁতার শুরু করেন অংশগ্রহণকারীরা। দেড় থেকে দুই ঘণ্টার মধ্যে ১১ জন সাঁতারু যমুনা পাড়ি দিয়ে বেলকুচি ঘাটে পৌঁছান।
default-image

যমুনা পাড়ি দেওয়া ১১ জন হচ্ছেন মাসুদ রানা, ফেরদৌস আলম, মনির হায়দার, আল আমিন, শুভ্র কামাল, শরীফ ফয়সাল, এরশাদ খান, মনির হোসেন, মোহাম্মদ হাসান, মাহবুব ও মো. বদরুউদ্দিন। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে হাসান খান ও নাসির আহম্মেদ নামের দুজন তীরের কাছাকাছি গিয়ে তীব্র স্রোতের মধ্যে পড়ে আটকে ছিলেন। শেষ পর্যন্ত তাঁরা পার হতে পারেননি।

নদী পার হওয়ার পর নৌকাযোগে সবাই বেলকুচি থেকে টাঙ্গাইলের মহেশপুর ঘাটে ফিরে আসেন। সেখানে জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা মো. নুর এ এলাহী তাঁদের হাতে সনদ তুলে দেন।

ক্রীড়া পরিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, সাঁতারকে জনপ্রিয় করে তুলতে এবং সাঁতার শিখতে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতে এ আয়োজন করা হয়েছিল। এর আগে পদ্মা, মেঘনা, তিস্তা, কাপ্তাই লেকসহ বিভিন্ন স্থানে এ ধরনের আয়োজন করা হয়েছিল।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন