default-image

ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌরসভা নির্বাচনে ভোট জালিয়াতির অভিযোগে গৌরীপুর সরকারি কলেজে ভোটকেন্দ্র থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর চারজন সমর্থককে আটক করা হয়েছে। আটক চারজনের মধ্যে তিনজন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা। আজ শনিবার বেলা দেড়টার দিকে তাঁদের আটক করা হয়।

এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পৌর শহরের শেখ লেবু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সন্ত্রাসীদের মারধরে আহত হয়েছেন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এনটিভির ক্যামেরাম্যান মাসুদ রানা।

আজ সকাল আটটা থেকে গৌরীপুর পৌরসভা নির্বাচনে নয়টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। এ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী শফিকুল ইসলামের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ও গৌরীপুর পৌরসভার বর্তমান মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম। গৌরীপুর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান হত্যা মামলার আসামি হওয়ায় সৈয়দ রফিকুল ইসলাম আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইতে পারেননি। তবে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করায় এ পৌরসভায় শুরু থেকেই উত্তেজনাপূর্ণ অবস্থা ছিল।

বিজ্ঞাপন

বেলা দেড়টার দিকে সরকারি কলেজ কেন্দ্রে জোর করে ভোট দিতে যাওয়ায় চারজনকে আটক করা হয়।

কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, আটক ব্যক্তিদের মধ্যে দুজন বর্তমান ও একজন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এবং একজন ছাত্রলীগ কর্মী।

গৌরীপুর পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুর রহিম প্রথম আলোকে বলেন, আটক চারজনকে থানায় রাখা হয়েছে। নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাঁদের পরিচয়ের বিষয়টি নিয়ে তিনি কোনো বক্তব্য দেননি।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শেখ লেবু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ওই সময় ছবি তুলতে গিয়ে মারধরের শিকার হন এনটিভির ক্যামেরাম্যান মাসুদ রানা। এ সময় এনটিভির ক্যামেরা ভাঙচুর করে দুর্বৃত্তরা।

সকাল থেকে বেলা দেড় পর্যন্ত গৌরীপুরের নয়টা কেন্দ্রে দেখা যায় ভোটারদের বিপুল উপস্থিতি। বেশির ভাগ কেন্দ্রে সামনে নারী ও পুরুষ ভোটারদের দীর্ঘ সারি। মানুষ উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিচ্ছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন