বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাহিদ ফারুক বলেন, সবার সমন্বিত প্রচেষ্টায় সুনামগঞ্জের হাওরের বোরো ফসল রক্ষা করা গেছে। তিনটি জায়গায় বাঁধ উপচে কিছু ফসলের ক্ষতি হলেও সবার সমন্বিত প্রচেষ্টায় ফসল রক্ষা পেয়েছে। ভবিষ্যতে হাওরের ফসল রক্ষায় মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ১ হাজার ৫৪৭ কোটি টাকা ব্যয়ে হাওর রক্ষায় ১৪টি নদী খননসহ বেশ কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আগামী বন্যার আগেই এর সুফল পাওয়া যাবে। নদী ও খাল খননের মাধ্যমে নাব্যতা বাড়লে বাঁধ উপচে আর পানি হাওরে ঢুকবে না।

প্রতিমন্ত্রীর বেড়িবাঁধ পরিদর্শনের সময় সেখানে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন, জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজেদুল ইসলাম, চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান হারুন রাশীদ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সকালে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী শান্তিগঞ্জ উপজেলার ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ পরিদর্শন করেন এবং শান্তিগঞ্জের ইজল বাড়িতে গিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন