বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সুজন সম্প্রতি চট্টগ্রামে অবস্থিত রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী বোরহান উদ্দিনকে মুঠোফোনে কল দেন। এ সময় তিনি নিজেকে সাংসদ সুলতান মনসুর পরিচয় দিয়ে অস্থায়ী ভিত্তিতে দুজন লোককে ওই দপ্তরে নিয়োগ দিতে বলেন। একপর্যায়ে সুজন মুঠোফোনে দুই চাকরিপ্রার্থীর নাম-ঠিকানা উল্লেখ করে তাঁর কাছে খুদে বার্তা পাঠান।

এরপর ওই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার পরামর্শ অনুযায়ী দুই প্রার্থীকে দিয়ে তাঁর বরাবর লিখিত আবেদনও পাঠানো হয়। আবেদন পাওয়ার পর সেখানে সাংসদের সুপারিশ না থাকায় রেলওয়ের কর্মকর্তার সন্দেহ হয়। এরপর তিনি সাংসদের ব্যক্তিগত মুঠোফোন নম্বর সংগ্রহ করে তাঁর সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় সুজনের প্রতারণার বিষয়টি ধরা পড়ে।

পরে সাংসদের পরামর্শে ওই কর্মকর্তা চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। পরে প্রযুক্তির সহায়তায় গতকাল রাতে সিলেট রেলস্টেশন এলাকায় অভিযান চালিয়ে সুজনকে গ্রেপ্তার করে কুলাউড়া থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ব্যাপারে কুলাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, সাংসদ সুলতান মনসুরের নাম ভাঙিয়ে সুজন তাঁর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সুজন জানিয়েছেন, তিনি চাকরি দেওয়ার কথা বলে ওই দুই চাকরিপ্রার্থীর কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। তাঁকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে মৌলভীবাজারের আদালতে পাঠানো হবে। তবে রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কোনো কর্মকর্তা এ ব্যাপারে মামলা করলে ওই মামলায় তাঁকে পরে গ্রেপ্তার দেখানো যাবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন