বিষয়টি আজ জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় উপস্থাপন করেন ইউনুস। এ ঘটনার নিন্দা জানান টাঙ্গাইল সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান আনছারী, বাসাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম। পরে বিষয়টি জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করার দাবি জানান তাঁরা। সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঘটনার বিবরণসহ জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর চিঠি দেওয়া হয়।

চিঠিতে জেলার ১২ উপজেলা চেয়ারম্যানের মধ্যে ৭ জন সই করেন। তাঁরা হচ্ছেন গোপালপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুস ইসলাম তালুকদার, টাঙ্গাইল সদর উপজেলা পরিষদের শাহজাহান আনছারী, বাসাইল উপজেলা পরিষদের কাজী অলিদ ইসলাম, সখীপুর উপজেলা পরিষদের জুলফিকার হায়দার কামাল, কালিহাতী উপজেলা পরিষদের আনছার আলী, দেলদুয়ার উপজেলা পরিষদের মাহমুদুল হাসান ও নাগরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সালাম।

তবে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সাংসদ তানভীর হাসান। তিনি মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ১০ এপ্রিল গোপালপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কিছু মিথ্যা অভিযোগ আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় উত্থাপন করেন। সভা শেষে তিনি (সাংসদ) জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে চলে আসেন। তানভীর হাসানের দাবি, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে হুমকি দেওয়া দূরের কথা, কোনো কথাই হয়নি।

সাংসদ তানভীর আরও বলেন, ‘বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুস ইসলাম তালুকদার দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। সামনে নির্বাচন আসছে। তাই আমাকে হেয় করার জন্য এবং আমার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এসব মিথ্যা অভিযোগ করছেন।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন