বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এক প্রশ্নের জবাবে সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহফুজা আক্তার বলেন, ‘আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি এবং আমাদের ম্যাজিস্ট্রেটরাও তা দেখছেন। ম্যাজিস্ট্রেটরা মাঠে আছেন। এটা এড়িয়ে যাওয়ার কিছু নেই। তাঁরা যে সভা করেছেন, মঞ্চে কারা কারা ছিলেন; তা ম্যাজিস্ট্রেটরা প্রতিবেদন দিলে আমরা ব্যবস্থা নেব। বিষয়টি আমরা শুনেছি। তবে আমাদের কাছে কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যাঁরা আছেন, তাঁরা বিষয়টা দেখছেন।’

এর আগে ১০ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের সাংসদ শামীম ওসমান সংবাদ সম্মেলন করে দলীয় প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর প্রচারণায় নামার ঘোষণা দিলে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তোলেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার।

ওই সংবাদ সম্মেলনের দুই দিন পর ১২ জানুয়ারি প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, শামীম ওসমানের আচরণ আচরণবিধি লঙ্ঘনের মধ্যে পড়ে। তবে তাঁকে নোটিশ বা শাস্তির আওতায় আনতে হবে এমন আচরণবিধি লঙ্ঘন করেননি তিনি।

আগামীকাল রোববার নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের মেয়র পদে সাত প্রার্থী, কাউন্সিলর পদে সাধারণ ওয়ার্ডে ১৪৮ জন এবং সংরক্ষিত আসনে ৩৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৬১ জন ভোটার ২৭টি ওয়ার্ডের ১৯২টি ভোটকেন্দ্রে তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন