মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ দক্ষিণ পাড়ার বাসিন্দা ও সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবদুল মান্নানের মাছ ধরার ট্রলারের জালে মাছটি ধরা পড়ে। পরে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ট্রলারটি শাহপরীর দ্বীপ মিস্ত্রিপাড়া ঘাটে এসে পৌঁছালে মাছটি দেখতে মানুষ ভিড় জমায়। পরে মাছটি ধরাধরি করে মিস্ত্রিপাড়া ঘাটে আনা হয়।

ট্রলারের মালিক আবদুল মান্নান বলেন, জেলেরা মাছটির দাম সাড়ে ৭ লাখ টাকা চেয়েছেন। এখন পর্যন্ত আবদুর রহমান নামের একজন মাছ ব্যবসায়ী এই মাছের দাম সাড়ে চার লাখ টাকা পর্যন্ত বলেছেন। তবে আরও বেশি দামের আশায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মাছটি চট্টগ্রামের মাছঘাটে পাঠানো হয়েছে।

ওই ট্রলারের চালক (মাঝি) মোহাম্মদ হাসু জানান, গত সোমবার সকালে মাছ ধরার জন্য শাহপরীর দ্বীপ থেকে নয়জন মাঝি আবদুল মান্নানের ট্রলার নিয়ে বঙ্গোপসাগরের উদ্দেশে রওনা দেন। এর মধ্যে মঙ্গলবার ভোরে জেলেরা জাল টেনে তুলতে গিয়ে দেখেন, জালে কয়েকটি লাল কোরালসহ বড় একটি কালা পোপা মাছ আটকা পড়ে।

মাছটি ট্রলারে তোলার পর বিষয়টি ট্রলারের মালিককে জানালে তিনি ট্রলারটি নিয়ে ঘাটে চল আসতে বলেন। মাছটি জালে ধরা পড়ায় জেলেরা খুশি হয়েছেন।

জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলার জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, ২৭ কেজি ২০০ গ্রাম ওজনের পোপা মাছ ধরা পড়ার খবরটি তিনি শুনেছেন। সব সময় জালে এত বড় পোপা মাছ ধরা পড়ে না। এই মাছের বায়ুথলি দিয়ে বিশেষ ধরনের সার্জিক্যাল সুতা তৈরি করা যায় বলে বিভিন্ন দেশে এই মাছের চাহিদা আছে। এই মাছের বৈজ্ঞানিক নাম মিকটেরোপারকা বোনাসি ((Mycteroperca bonaci)। পোপা মাছের বায়ুথলি বেশ মূল্যবান বলে এই মাছের দাম অনেক বেশি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন