আজ সকালে সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের বহালগাছিয়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, কম্বাইন হারভেস্টার যন্ত্র দিয়ে খেতের বোরো ধান কাটা হচ্ছে। আবার অনেক কৃষক হাতে ধান কেটে তা সড়কের পাশেই মাড়াই করে বস্তায় ভরে ঘরে নিয়ে যাচ্ছেন।

বহালগাছিয়া গ্রামের কৃষক রহিম খাঁ বলেন, তিনি এ বছর ১৬ একর জমিতে বোরোর আবাদ করেছেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন ভালো হয়েছে। আরও কয়েক দিন পর ধান ভালো করে পাকবে। তবে বন্যার আভাস পেয়ে ধান কাটা শুরু করেছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পটুয়াখালী কার্যালয় থেকে জানা গেছে, জেলায় এই মৌসুমে ১৬ হাজার ৯৭০ হেক্টর জমিতে বোরোর আবাদ হয়েছে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫৭ হাজার ৭৫ মেট্রিক টন। আর মুগডাল আবাদ হয়েছে ৮৬ হাজার ৪৩১ হেক্টরে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১ লাখ ৩৮ হাজার ৩৮ মেট্রিক টন।

অধিদপ্তরের পটুয়াখালী কার্যালয়ের উপপরিচালক কে এম মহিউদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, আজ পর্যন্ত ২০ ভাগ ধান কাটা হয়েছে বলে জানতে পেরেছেন। দ্রুত ধান কাটার জন্য ভর্তুকি হিসেবে জেলায় ৫৭টি কম্বাইন হারভেস্টার আছে। এ ছাড়া মুগডাল ঘরে তোলা হয়েছে ৫০ ভাগ। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ না এলে কৃষকেরা তাঁদের ফসল গোলায় তুলতে পারবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন