default-image

চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলায় বন্ধুর ছুরিকাঘাতে মো. সাবিদুল ইসলাম সাজ্জাদ (২৪) নামের এক তরুণ খুন হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার কালিয়াইশ ইউনিয়নের বিওসির মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
সাবিদুল ইসলাম চট্টগ্রামের চন্দনাইশের দোহাজারী পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বারুদখানা এলাকার মো. কফিল উদ্দিনের ছেলে। তিনি সাতকানিয়ার জাফর আহমদ চৌধুরী ডিগ্রি কলেজের স্নাতক শ্রেণির ছাত্র ছিলেন।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দোহাজারীর বারুদখানা এলাকার বাসিন্দা সাবিদুল ইসলামের সঙ্গে কালিয়াইশের মৃত ইসলাম মিয়ার ছেলে রবিউল ইসলামের বন্ধুত্ব ছিল। তাঁরা প্রায়ই একজন আরেকজনের বাড়িতে আসা-যাওয়া করতেন। গতকাল দুপুরেও সাবিদুল ও রবিউল কালিয়াইশের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরেছেন। রাত সাড়ে নয়টার দিকে তাঁরা দুই বন্ধুসহ আরও কয়েকজন মিলে কালিয়াইশের বিওসির মোড় এলাকায় আড্ডা দিচ্ছিলেন। ওই সময় হঠাৎ করে সাবিদুল ও রবিউলের মধ্যে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে সাবিদুল ইসলামের বুকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান রবিউল। পরে উপস্থিত লোকজনসহ স্থানীয়রা এগিয়ে এসে সাবিদুলকে উদ্ধার করে দোহাজারীর একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে পটিয়ায় তাঁর মৃত্যু হয়।

বিজ্ঞাপন

সাতকানিয়ার কাইলয়াইশ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হাফেজ আহমদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘শুনেছি দোহাজারীর বারুদখানা এলাকার বাসিন্দা সাবিদুল ইসলামের সঙ্গে কালিয়াইশের রবিউলের ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব ছিল। তাঁরা গতকাল দুপুরেও কালিয়াইশের বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাফেরা করেছেন। কিন্তু কী কারণে তাঁদের দুজনের মধ্যে ঝামেলা সৃষ্টি হয়েছে এবং এক বন্ধু আরেক বন্ধুকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছেন, বুঝতে পারছি না।’
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনার খবর পাওয়ার পরপরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। দুই বন্ধুর মধ্যে কেন বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে বা কী কারণে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। সাবিদুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া রবিউলকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

মন্তব্য পড়ুন 0