বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাতক্ষীরা সদর উপজেলা বাঁশদহ ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মফিজুর রহমান, ঝাউডাঙ্গায় ইউনিয়নে আজমল হোসেন ও ব্রহ্মরাজপুর ইউনিয়নে মো. আলাউদ্দিন জয়ী হয়েছেন। কুশখালী ইউনিয়নে জেলা জামায়াতের সদস্য আবদুল গফফার বিজয়ী হয়েছেন। লাবসা ইউনিয়নে জেলা বিএনপির সদস্যসচিব আবদুল আলিম ও বল্লী ইউনিয়নে জেলা বিএনপির সদস্য মহিতুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন।

ভোমরা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রার্থী ইসরাঈল গাজী ও আগড়দাড়ি ইউনিয়নে কবির হোসেন বিজয়ী হয়েছেন। বৈকারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী জেলা তরুণ লীগের সাধারণ মোস্তফা কামাল, ঘোনা ইউপিতে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল কাদের, শিবপুর ইউনিয়নে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, ধুলিহর ইউনিয়নে কৃষক লীগের নেতা মিজানুর রহমান চৌধুরী ও ফিংড়ি ইউনিয়নে লুৎফর রহমান বিজয়ী হয়েছেন।

ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের নেতিবাচক ফলাফলের কারণ জানতে চাইলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের দুজন নেতা জানিয়েছেন, নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন দেওয়ার সময় তৃণমূলের মতামতকে উপেক্ষা করা হয়েছে। এ ছাড়া জনপ্রিয় প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। গতবার নির্বাচিত হওয়ার পর চেয়ারম্যানরা অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়ার বিষয়টি পরাজয়ের বড় কারণ হিসেবে দেখছেন তাঁরা।  

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুর রশিদ বলেন, তাঁকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে কয়েক দিন আগে। তা ছাড়া একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হওয়ায় ৯ জনকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। বিস্তারিত জানতে হলে জেলা নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শ দেন তিনি।

১৩ ইউনিয়নের আটজনই প্রথম চেয়ারম্যান
সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের আটটিতেই নতুন প্রার্থী জয় পেয়েছেন। চলতি মেয়াদে চেয়ারম্যান ছিলেন, তাঁদের মধ্যে নির্বাচিত হয়েছেন তিনজন। তাঁরা হলেন লাবসায়  আবদুল আলিম, ঝাউডাঙ্গায় আজমল উদ্দিন ও ভোমরায় ইসরাইল গাজী। এ ছাড়া কুশখালীতে জামাতের আবদুল গফ্ফার ও বল্লীতে মহিতুল ইসলাম আগে একবার করে নির্বাচন করেছেন।

প্রথমবার যাঁরা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন, তাঁরা হলেন ফিংড়িতে লুৎফর রহমান, ধুলিহরে মিজান চৌধুরী, ব্রহ্মরাজপুরে মো. আলাউদ্দিন, শিবপুরে এস এম আবুল কালাম আজাদ, ঘোনায় আবদুল কাদের, আগরদাড়ীতে কবির হোসেন, বৈকারীতে আবু মো. মোস্তফা কামাল ও বাঁশদহায় মফিজুল ইসলাম।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন