default-image

সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলায় দুই সন্তানসহ মায়ের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার নাগলঝাড়া গ্রাম থেকে তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের ধারণা, মা দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করেছেন।

লাশ উদ্ধার হওয়া তিনজন হলেন মাহফুজা খাতুন (২৮), তাঁর ছেলে মাহফুজ (১০) ও মেয়ে মোহনা খাতুন (৫)। তাঁদের বাড়ি উপজেলার নাগলঝাড়া গ্রামে। মাহফুজা খাতুনের স্বামীর নাম শিমুল হোসেন। তিনি বাগেরহাটে ট্রাক্টর চালান এবং সেখানেই থাকেন।

মাহফুজা খাতুনের মা মনোয়ার খাতুন বলেন, তাঁর মেয়ে আজ সকাল সাতটার দিকে হঠাৎ করে ফোন করে জানান, তাঁর আত্মহত্যা করা ছাড়া কোনো উপায় নেই। এমন কথা শুনে দ্রুত নাগলঝাড়া গ্রামে মেয়ের বাড়ি গিয়ে দেখেন, নাতনি মোহনা খাতুনের লাশ ঘরের বাইরে পড়ে আছে। ঘরে ঢুকে দেখেন তাঁর মেয়ে মাহফুজা ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলছেন। আর মেঝেতে পড়ে আছে নাতি মাহফুজের লাশ। এ সময় তাঁর চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ এসে লাশ তিনটি উদ্ধার করে।

বিজ্ঞাপন

মাহফুজার ভাই যশোরের শর্শা উপজেলার বসতপুর গ্রামের মশিয়ার রহমান বলেন, কয়েক দিন আগে স্থানীয় কয়েক জন বখাটে তাঁর বোনের মেয়ে মোহনা খাতুনকে যৌন হয়রানি করেন। বিষয়টি স্থানীয় কয়েকজনকে জানালে কোনো প্রতিকার হয়নি। বাধ্য হয়ে মাহফুজা তাঁর ট্রাক্টরচালক স্বামী শিমুল হোসেনকে বাড়ি এসে বিষয়টি প্রতিকারের অনুরোধ করেন। শিমুল বাগেরহাট থেকে বাড়িতে আসতে রাজি না হওয়ায় তাঁর বোন রাগে, ক্ষোভে ও দুঃখে আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর খায়রুল কবির বলেন, এ ঘটনায় সাতক্ষীরা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সামছুল হকসহ তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। দুই শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শিশু দুটির মা মাহফুজা আত্মহত্যা করেছেন, না অন্য কোনো কারণে মৃত্যু হয়েছে, তা ময়নাতদন্ত ছাড়া বলা যাচ্ছে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন