default-image

বাল্যবিবাহের আয়োজন করার দায়ে সাতক্ষীরায় কনের বাবা, দাদা এবং বরের ভগ্নিপতি ও ফুফাকে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে। তালা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রবিউল ইসলাম আজ সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এ সাজা দেন।

সাতক্ষীরা জেলা বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটির প্রশাসনিক প্রধান সাকিবুর রহমান জানান, তাঁরা জানতে পারেন, সাতক্ষীরার তালা উপজেলার ধান্দিয়া ইউনিয়নের ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীর আজ বিয়ের আয়োজন করা হয়েছে পাশের সরুলিয়া ইউনিয়নের এক তরুণের সঙ্গে। খবর পেয়ে তিনি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক, তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) জানান। পরে আজ দুপুরে ধান্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মারুফ হোসেন ও গ্রাম পুলিশ মো. মঞ্জুরুলকে নিয়ে তিনি ছাত্রীদের বাড়িতে যান। সেখানে গিয়ে দেখেন শতাধিক বরযাত্রী খাচ্ছেন। বাবার কাছ থেকে জন্মসনদে দেখতে পান কনের বয়স ১৪ বছর। বরের ভগ্নিপতি জানান, তাঁর শ্যালকের বয়স ১৯ বছরের একটু বেশি। কিন্তু তাঁরা জন্মসনদ দেখাতে পারেননি।

সাকিবুর রহমান আরও জানান, তাঁরা বিয়ে বন্ধ রেখে তালা উপজেলার ইউএনও ইকবাল হোসেন ও উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা নাজমুন নাহারকে জানান। পরে ইউএনওর নির্দেশে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও তালা উপজেলা মহিলা বিষয়ককর্মকর্তা কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে আসেন। সেখানে সবকিছু দেখে তালা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে কনের বাবাকে ৬ মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং দাদাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদণ্ড দেন। বরের ভগ্নিপতিকে ৬ মাসের বিনাশ্রম করাদণ্ড ও ফুফাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদণ্ড দেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন