default-image

মাত্র ২০০ টাকার জন্য ইজিবাইকচালক সালাহউদ্দীনকে খুন করা হয় বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার সাগর হোসেন (১৫) পুলিশকে জানিয়েছে।

এদিকে সালাহউদ্দীনকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় সাগর হোসেনকে আসামি করে শনিবার রাতে থানায় মামলা করেন তাঁর (সালাহউদ্দীন) বাবা শাহজাহান আলী। এর আগে পুলিশ শনিবার সন্ধ্যায় সাগরকে হত্যায় ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরিসহ গ্রেপ্তার করে।
সাগর সাতক্ষীরা শহরের রসুলপুর এলাকার শহীদুল ইসলামের ছেলে। ইজিবাইকচালক সালাহউদ্দীন একই এলাকার শাহজাহান আলীর ছেলে।

সাতক্ষীরার গোয়েন্দা পুলিশ পরিদর্শক ইয়াসিন আলম চৌধুরী বলেন, সাগরকে শনিবার সালাহউদ্দীনের লাশ উদ্ধারের তিন ঘণ্টার মধ্যে শহরের পলাশপোলের সরকারি কবরস্থানের কাছ থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী শহরতলির লাবসা বাইপাসের কাছে একটি গ্যারেজ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত ধারালো ছুরি জব্দ করা হয়। তার দেওয়া জবানবন্দি অনুযায়ী শুক্রবার রাত তিনটায় সে তার বন্ধু সালাহউদ্দীনকে হত্যা করে। জবানবন্দিতে সে আরও বলে, সালাহউদ্দীনের কাছে গাঁজা কেনার জন্য ২০০ টাকা দিয়েছিল সে। কিন্তু সালাহউদ্দীন গাঁজা বা টাকা কোনোটাই ফেরত না দেওয়ায় সে তাকে খুন করেছে বলে জানিয়েছে।

এর আগে শনিবার বেলা আড়াইটার দিকে সাতক্ষীরা শহরতলির কাশেমপুর মালীপাড়া এলাকা থেকে কিশোর সালাহউদ্দীনের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বুরহান উদ্দীন জানান, সালাহউদ্দীনের বাবা বাদী হয়ে শনিবার রাতে মামলাটি দায়ের করেন। কাল সোমবার আদালতে গ্রেপ্তারকৃত সাগরের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার কথা রয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন