বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাড়ি ফেরার পর সিতাংশ প্রথম আলোকে জানান, উপজেলার চৈত্রঘাটে ব্যবসায়ী নাজমুল হত্যার ঘটনায় ২ নভেম্বর রাতে র‍্যাব সদস্যরা তাঁকে সন্দেহজনক হিসেবে নিয়ে যান। সিলেট র‍্যাব-৯-এর ক্যাম্পে তাঁকে সাত দিন রাখা হয়েছিল। জিজ্ঞাসাবাদ করার পর নাজমুল হত্যায় তাঁর কোনো সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় সন্ধ্যার পর তাঁকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। র‍্যাব সদস্যরা তাঁকে কোনো নির্যাতন করেনি বলে জানান সিতাংশ।

২ নভেম্বর রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওষুধ কেনার জন্য চৈত্রঘাট বাজারে যান সিতাংশ। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ ছিলেন। এ ঘটনায় রোববার সন্ধ্যায় সিতাংশের স্ত্রী মনিবালা দত্ত কমলগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এ নিয়ে গতকাল সোমবার প্রথম আলোয় একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

র‍্যাব-৯ সিলেট দপ্তরের মিডিয়া ও অপারেশন বিভাগের মেজর মাহফুজ বলেন, চৈত্রঘাটের ব্যবসায়ী হত্যাকাণ্ড ঘটনায় সন্দেহজনকভাবে সিতাংশ লাল দত্তকে আটক করা হয়েছিল। সোমবার সন্ধ্যায় তাঁকে আবার ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন