default-image

নেত্রকোনার-১ (কলমাকান্দা-দুর্গাপুর) আসনের তিনবারের সাবেক সাংসদ জালাল উদ্দিন তালুকদার হত্যা মামলার বিচারপ্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন ও সমাবেশ হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকেলে ‘জালাল তালুকদার হত্যার প্রতিবাদ পরিষদ’ তাঁর নিজ বাসার পাশের আঙিনায় এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

সংবাদ সম্মেলনে জালাল উদ্দিন তালুকদারের ছেলে শাহ কুতুব উদ্দিন তালুকদার মূল বক্তব্য তুলে ধরেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে কুল্লাগড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ, যুবলীগের নেতা রফিক মিয়া, উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি রফিকুল ইসলাম ও গাওকান্দিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা আবদুর রহিদ হাসান উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে কুতুব উদ্দিন বলেন, ২০১২ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর সকালে জালাল উদ্দিন তালুকদার তাঁর নিজ বাসায় রহস্যজনকভাবে মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। এরপর কুতুব উদ্দিন বাদী হয়ে স্থানীয় থানায় মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে দুর্গাপুর থানা–পুলিশ এবং পরে পর্যায়ক্রমে ডিবি, সিআইডি ও পিবিআই তদন্ত করে। কিন্তু এসব সংস্থার তদন্ত প্রতিবেদন সন্তোষজনক না হওয়ায় তিনি উচ্চ আদালতে আপিল করেন। তাঁর আপিল আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে দুর্গাপুর আমলি আদালতের জ্যেষ্ঠ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সম্প্রতি তদন্তকাজ শেষ করেন।

কুতুব উদ্দিনের দাবি, তদন্তের হত্যার জন্য তাঁর সৎমা আয়েশা বেগমকে সুনির্দিষ্টভাবে অভিযুক্ত করা হয়েছে। বিচার বিভাগীয় তদন্তের প্রতিবেদন এখন বিচারিক আদালত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে প্রেরণ করা হয়। তিনি অভিযোগটি আমলে নিয়ে দ্রুত বিচারপ্রক্রিয়া শেষ করার দাবি জানান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0