বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আন্দোলনে অংশ নেওয়া কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে নিটার উপদেষ্টা মিজানুর রহমান ও রেজিস্ট্রার কাজী আন্দালিব আমিনের পদত্যাগসহ ছয় দফা দাবিতে বিক্ষোভ ও প্রশাসনিক ভবন অবরোধ করে রেখেছিলেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। বুধবার দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে শিক্ষকদের নিয়ে অধ্যক্ষ মো. আবদুল মুত্তালিব তাঁর কার্যালয় থেকে প্রশাসনিক ভবনের মূল ফটকে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে আসেন। এ সময় তিনি মিজানুর ও আন্দালিবের লিখিত পদত্যাগের অনুলিপি শিক্ষার্থীদের দেখিয়ে আন্দোলন প্রত্যাহারের অনুরোধ জানান। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদের সব দাবি যৌক্তিক হওয়ায় তা মেনে নেওয়া হয়েছে বলে জানান। তবে তখন পদত্যাগপত্রে গভর্নিং বডির সভাপতির স্বাক্ষর না থাকায় শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে অনড় থাকেন।

পরে শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধিদল অধ্যক্ষের কক্ষে গিয়ে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন। অধ্যক্ষের কাছে মিজানুর রহমান ও আন্দালিব আমিনের পদত্যাগপত্রের বৈধতা এবং তা কার্যকর হওয়ার সময় জানতে চান। এ ছাড়া তাঁরা মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে ওঠা নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে প্রশাসনের করণীয় সম্পর্কে জানতে চান। এ সময় অধ্যক্ষ পদত্যাগের বিষয়ে গভর্নিং বডির সদস্যরা সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান। এ জন্য ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত সময় চান তিনি। তবে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা অধ্যক্ষের আশ্বাস দায়সারা উল্লেখ করে পদত্যাগপত্র আন্দোলন চলাকালেই কার্যকর করার দাবি জানান।

বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে অধ্যক্ষ গভর্নিং বডির সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন বলে  শিক্ষার্থীদের জানান এবং সভাপতির স্বাক্ষরিত পদত্যাগপত্রটি তাঁদের দেখান। পরে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন প্রত্যাহার করে ক্যাম্পাসে আনন্দ শোভাযাত্রা করেন।

আন্দোলনকারী এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘মিজানুর রহমান ও আন্দালিব আমিনের পদত্যাগপত্রটিতে গভর্নিং বডির সভাপতির কোনো সই ছিল না। অধ্যক্ষ মৌখিকভাবে আজ আমাদের দাবি মেনে নিয়েছেন বললেও এর প্রশাসনিক ভিত্তি ছিল না। তাই আমরা অন্দোলন অব্যাহত রেখেছিলাম।’
আন্দোলনকারী অপর এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমরা আমাদের দাবি আদায়ে সক্ষম হয়েছি। প্রশাসন দ্রুতই ছয় দফা দাবিগুলো বাস্তবায়ন করলে আমরা আরও বেশি খুশি হব।’

এ বিষয়ে নিটার অধ্যক্ষ মো. আবদুল মুত্তালিব প্রথম আলোকে বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো যৌক্তিক। এ কারণে তাঁদের সব দাবি মেনে নেওয়া হয়েছে। গভর্নিং বডির সভাপতির স্বাক্ষরের মাধ্যমে উপদেষ্টা ও রেজিস্ট্রারের পদত্যাগপত্র চূড়ান্তভাবে গৃহীত হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন