default-image

ঢাকার সাভারে এক শিশুকে (৬) পরপর দুই দিন ধর্ষণের অভিযোগে ইব্রাহীম খলিল নামের এক যুবককে (২২) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া এক তরুণীকে (২১) ঘরে ঢুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে বাবুল (৩৬) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সাভার থানার পুলিশ জানায়, ওই শিশুর (৬) মা ও বাবা সাভারের একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। শিশুর পরিবার ও ইব্রাহীমের পরিবার একই বাসায় থাকেন। মা–বাবা শিশুটিকে রেখে প্রতিদিন সকালে কর্মস্থলে যান এবং রাতে বাসায় ফেরেন। ওই সময়ে শিশুটি একাই বাসায় থাকে। গত বুধবার সন্ধ্যায় ইব্রাহীম শিশুটির বাসায় ঢুকে শৌচাগারের ভেতরে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন। এ সময় শিশুটি চিৎকার দিলে তার মুখ চেপে ধরে তাকে হত্যার হুমকিসহ নানা ভয় দেখান ইব্রাহীম। ভয়ে শিশুটি তার মা–বাবাকে কিছু বলেনি। এই সুযোগে ইব্রাহীম পরের দিন বৃহস্পতিবার একই সময় ঘরের পেছনে গলির ভেতরে নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করেন। দ্বিতীয়বার ধর্ষণের কারণে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়ে।

বিজ্ঞাপন

শিশুটির বাবা বলেন, ভয়ে তাঁর মেয়ে সব গোপন করলেও অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁরা বিষয়টি আঁচ করতে পারেন। পরে জিজ্ঞাসাবাদে সে সব খুলে বলে। আজ শনিবার তিনি সাভার থানায় গিয়ে ইব্রাহীমের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

এদিকে গতকাল শুক্রবার তরুণী ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার ব্যক্তির নাম বাবুল (৩৬)। পুলিশ জানায়, একটি পোশাক কারখানায় কর্মরত ওই তরুণী গতকাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে শিশুকন্যাকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এ সময় তরুণীর মা কোনো কাজে ঘর থেকে বের হন। এই সুযোগে প্রতিবেশী বাবুল ঘরে ঢুকে তাঁকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় বকুল নামের একজন ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে থেকে পাহাড়া দিচ্ছিলেন। পরে তরুণীর চিৎকারে তাঁর মা ঘরে ঢুকে বাবুলকে নিবৃত্ত করেন। এরপর তাঁরা বিষয়টি প্রকাশ করলে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান। এ ব্যাপারে ওই তরুণী আজ বাবুল–বকুলের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।

সাভার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম সায়েদ বলেন, গতকাল রাতেই অভিযোগ পেয়ে দুটি ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়। আজ থানায় মামলা হওয়ার পর আসামিদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে সোপর্দ করা হয়।

মন্তব্য পড়ুন 0