সালিশে ছুরিকাঘাতে নিহত ইমন হোসেনের মায়ের আহাজারি। মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় বৃহস্পতিবার বিকেলে।
সালিশে ছুরিকাঘাতে নিহত ইমন হোসেনের মায়ের আহাজারি। মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় বৃহস্পতিবার বিকেলে।ছবি: প্রথম আলো

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় কিশোর গ্যাংয়ের সালিসে ছুরিকাঘাতে তিনজনকে হত্যার ঘটনায় ২৭ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। এ ঘটনায় শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন মো. জামাল হোসেন( ৫০), তাঁর স্ত্রী নাসরিন বেগম (৪০), মো.জাহাঙ্গীর হোসেন (৫৫), মো.রনি (২২), মো.ইমরান হোসেন (২০), রাহুল প্রধান (২০)।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাজীব খান জানান, নিহত মিন্টু প্রধানের স্ত্রী খালেদা আক্তার বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে মামলাটি করেন। মামলায় ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ১০-১৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। ইতিমধ্যে এজহারনামীয় ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে গত বুধবার বিকেলে উত্তর ইসলামপুর এলাকায় দুটি কিশোর গ্যাংয়ের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। সেখানে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। সমস্যার সমাধান করতে সেদিন রাত ১০টার দিকে দুই পক্ষকে নিয়ে সালিসে বসা হয়। সেখানে সৌরভ, অভি, সিহাব পক্ষের ছুরিকাঘাতে প্রাণ যায় মো. ইমন হোসেন (২২), মো. সাকিব হোসেন (১৯) ও মিন্টু প্রধানের (৪০)। এ দুই পক্ষের সবার বাড়ি উত্তর ইসলামপুর এলাকায়।

এদিকে এ ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এলাকার বিভিন্ন সড়কে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

স্থানীয়রা বলেন, এলাকার কিশোর-তরুণেরা কয়েকটি দলে বিভক্ত। আধিপত্য নিয়ে পক্ষগুলো প্রায়ই ঝামেলায় জড়ায়। ঘটে মারামারির ঘটনাও। হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর থেকে এ গ্রামের প্রতিটি ঘরে, মানুষের চোখে-মুখে আতঙ্ক। এমন ঘটনা এর আগে কখনো ঘটেনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন