বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে নৌকা প্রতীকের পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুল হালিম ওরফে রাজু বলেন, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকবেই। তবে প্রতিহিংসা থাকা ঠিক নয়। এই নির্বাচনী প্রতিহিংসায় প্রতিপক্ষ তাঁর কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন। মশার কয়েল থেকে ওই বাড়িতে আগুন লাগতে পারে।

জামির্ত্তা ইউনিয়ন যুবলীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ও নৌকা মনোনীত প্রার্থীর কর্মী খোকন মিয়া জানান, তিনি ও তাঁর ভাই স্বপন মিয়া ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবদুল হালিমের পক্ষে কাজ করেন। এতে দলের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী আবুল হোসেনের কর্মীরা তাঁদের হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিলেন। নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী জয়ী হওয়ার পর তাঁর কর্মীরা আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠেন।

খোকন মিয়া বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে বাউতিপাড়া গ্রামে তাঁদের বাড়ির পাশ দিয়ে বিজয় মিছিল নিয়ে যাওয়ার পথে তাঁদের ভয়ভীতি দেখান বিজয়ী প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকেরা। এরপর রাত আনুমানিক তিনটার দিকে তাঁদের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এতে গোয়ালঘরে থাকা দুটি গরু এবং নিজের ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেল পুড়ে যায়। এরপর প্রতিবেশীদের সহায়তায় এক ঘণ্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে ততক্ষণে আধপাকা ঘরের টিনের চালা, গরু ও মোটরসাইকেলসহ কয়েক লাখ টাকার মালামাল পুড়ে যায়।

এ বিষয়ে সিঙ্গাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, আগুন লাগার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। ঘটনা নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে এই ঘটনায় কারও সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তাঁর বা তাঁদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন