default-image

সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমানের করোনার টিকা নেওয়ার মধ্য দিয়ে রংপুরে করোনার টিকা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এরপর রংপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ কে এম নূরুন্নবী লাইজু, জেলা প্রশাসক আসিব আহসান, সিভিল সার্জন হিরম্ব কুমার রায় পর্যায়ক্রমে টিকা নেন। রোববার সকাল সোয়া ১০টার দিকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড কোয়ারেন্টিন সেন্টারে টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে।

সিটি মেয়র ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ভ্যাকসিন নেওয়ার পরপরই নিবন্ধন করা বিভিন্ন চিকিৎসক ও সরকারি কর্মকর্তা ভ্যাকসিন নেন। এ সময় সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান বলেন, ‘ভ্যাকসিন গ্রহণে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। আতঙ্কিত না হয়ে সবারই ভ্যাকসিন গ্রহণ করা প্রয়োজন। সাধারণ মানুষ যেন আতঙ্কিত না হয়, এ জন্য আমি সবার আগে ভ্যাকসিন নিয়েছি।’

জেলা সিভিল সার্জন হিরম্ব কুমার রায় বলেন, গতকাল শনিবার বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত জেলায় সাত হাজার ৬৩২ জন নিবন্ধন করেছেন। এর মধ্যে চিকিৎসক রয়েছেন ৫০০ জন। রংপুরে প্রথম ধাপে সাত উপজেলায় সাতটি ও সিটি করপোরেশন এলাকার জন্য আটটি বুথের মাধ্যমে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সিটির ভেতর রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও উপজেলাগুলোয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে এসব টিকা দেওয়া হচ্ছে। প্রথম দিন ১ হাজার ৫০০ জনকে টিকা দেওয়া হবে। পর্যায়ক্রমে আরও ডোজ এলে নিয়মমাফিক এসব টিকা দেওয়া হবে।

স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ, মুক্তিযোদ্ধা, প্রশাসনের কর্মকর্তা ও ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হবে বলে জানান সিভিল সার্জন হিরম্ব কুমার রায়।

টিকা দেওয়ার কাজে নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। ভ্যাকসিন পেতে অনলাইনে বাধ্যতামূলক রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। রেজিস্ট্রেশন ছাড়া ভ্যাকসিন নেওয়া যাবে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন