বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালত সূত্রে জানা যায়, সিনহা হত্যার সঙ্গে ওসি প্রদীপ জড়িত নন দাবি করে রানাদাশ গুপ্ত নানা যুক্তি উপস্থাপন করছেন। আইনজীবীরা জানান, এই যুক্তিতর্ক সন্ধ্যা পর্যন্ত গড়াতে পারে।

এর আগে গতকাল সোমবার বিকেলে আইনজীবী চন্দন শর্মা যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেছিলেন। তবেসময়ের অভাবে তিনি যুক্তি উপস্থাপন শেষ করতে পারেননি। আগের দিনের মতো আজও চন্দন শর্মা দাবি করেন, সিনহা হত্যার সঙ্গে লিয়াকত আলী জড়িত নন, তাঁকে এই মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল আদালত পরিচালনা করছেন। এ সময় আদালতের কাঠগড়ায় ছিলেন ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ মামলার ১৫ আসামি। এর আগে আজ সকাল সাড়ে নয়টার দিকে জেলা কারাগার থেকে প্রিজনভ্যানে ১৫ আসামিকে আদালতে নিয়ে আসা হয়।
আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও পিপি ফরিদুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত যুক্তি উপস্থাপন চলবে। চলতি মাসের শেষের দিকে সিনহা হত্যা মামলার রায় হতে পারে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত মামলার ৮৩ সাক্ষীর মধ্যে ৬৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। মামলার ১৫ আসামির সাফাই সাক্ষ্য হয়েছে।

আদালত সূত্র জানায়, ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে তিনটি মামলা করে। ঘটনার পাঁচ দিন পর, অর্থাৎ ৫ আগস্ট কক্সবাজার আদালতে টেকনাফ থানার বহিষ্কৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ ৯ পুলিশের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন