বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল আদালত পরিচালনা করছেন। লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইমরানের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে তাঁকে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা জেরা করবেন। এরপর অন্য সাক্ষীদেরও অনুরূপভাবে সাক্ষ্য গ্রহণ ও জেরা করা হবে। গতকাল সোমবার দুজন সেনাসদস্য, একজন পুলিশ কনস্টেবল ও কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গের দুজন ডোমের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছিল।

আইনজীবীরা জানান, এ মামলায় প্রথম দফায় মামলার বাদী ও সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস এবং ২ নম্বর সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম ওরফে সিফাতের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। এরপর দ্বিতীয় দফায় চারজন, তৃতীয় দফায় আটজন, চতুর্থ দফায় ছয়জন এবং পঞ্চম দফার গত দুই দিনে ১১ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে মেজর সিনহা নিহত হন। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে তিনটি (টেকনাফে দুটি, রামুতে একটি) মামলা করে। ঘটনার পর গত ৫ আগস্ট কক্সবাজার আদালতে প্রদীপ কুমার দাশ, লিয়াকত আলীসহ ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন মেজর সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন