প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফজরের নামাজ শেষে হঠাৎ গুদাম থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখে মুসল্লিরা মসজিদের মাইকে মহল্লাবাসীকে ডাকেন। সে সময় গ্রামবাসী এসে অনেক চেষ্টা করেও আগুন নেভাতে না পেরে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন। পরে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

গুদামের মালিক ব্যবসায়ী নূর কায়েম বলেন, ‘এসিআই গোদরেজ প্রাইভেট লিমিটেডকে গুদামটি ভাড়া দেওয়া হয়েছে। তারা সেখানে মুরগির খাবার মজুত রেখেছে। এখানে কোনো বৈদ্যুতিক সংযোগ নেই। তারপরও কীভাবে আগুন লাগল, সেটা বুঝতে পারছি না। এ অগ্নিকাণ্ডে গুদামের অবকাঠামোই প্রায় এক কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া বিপুল পরিমাণ মুরগির খাবার আগুনে পুড়ে নষ্ট হয়েছে।’

সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের ওয়্যার হাউস পরিদর্শক মেহেরুল ইসলাম প্রথম আলোকে জানান, স্থানীয় ব্যক্তিদের কাছে খবর পেয়ে দ্রুত ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণ করেছে। তবে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনো নিরূপণ করা যায়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন