default-image

সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ বিন আহমেদসহ তিনজনের বিরুদ্ধে কাজে বাধা ও চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠেছে। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প করপোরেশনের (বিসিক) শিল্পপার্ক বাস্তবায়ন প্রকল্প এলাকায় মালামাল প্রবেশে বাধা ও চাঁদা দাবির অভিযোগটি তুলেছেন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মোশতাক হাসান।

সম্প্রতি এক চিঠিতে এমন অভিযোগ তুলে বিসিক চেয়ারম্যান জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, র‌্যাব-১২–এর অধিনায়কের সহায়তা চেয়েছেন। গত শনিবার চিঠি পাওয়ার কথা জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।

বিসিক সূত্রে জানা গেছে, শিল্পপার্ক প্রকল্পের সীমানাদেয়াল, রাস্তা, অফিস ভবন, ড্রেন-কালভার্ট নির্মাণকাজ বাস্তবায়নের জন্য মালামাল প্রবেশে বাধা দিয়েছেন আবদুল্লাহ ও তাঁর সহযোগীরা। ছাত্রলীগ নেতার সহযোগীরা হলেন সদর উপজেলার কালিয়াহরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রফিকুল ইসলাম ও স্থানীয় বাসিন্দা ছোবহান আলী।

অভিযোগে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত ব্যক্তিরা ঠিকাদারকে বিভিন্ন সময় হুমকি-ধমকিসহ মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করেন। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, চার শ একর জমির ওপর নির্মিত শিল্পপার্কটির মাধ্যমে উত্তরাঞ্চলের অর্থনীতি শক্তিশালী হবে। কমপক্ষে এক লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে এতে। তাই নিরবচ্ছিন্নভাবে পার্কটি নির্মাণে কাজ করতে প্রশাসনের সহায়তা চাওয়া হয়েছে।

অভিযুক্ত জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ বিন আহেমদ বলেন, তিনি নিজে একজন প্রকৌশলী। বর্তমানে যে প্রতিষ্ঠান ঠিকাদারের হয়ে কাজ করছে, সেই প্রতিষ্ঠানে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন কর্মরত ছিলেন। চাঁদা বা হুমকি দেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না।

আবদুল্লাহ বলেন, তিনি নিজেই এই প্রকল্পের বালু, পাথর সরবরাহের সহযোগী। একটি মহল উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তাঁর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুলছে।
জেলা পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম এ বিষয়ে রোববার বলেন, তিনি অভিযুক্ত ব্যক্তিদের ডেকে কথা বলেছেন। বর্তমানে কাজ এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা নেই।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন