বিজ্ঞাপন

সিরাজগঞ্জ ট্রাফিক পরিদর্শক আবদুল কাদের বলেন, বঙ্গবন্ধু সেতুর গোলচত্বর থেকে হাটিকুমরুল পর্যন্ত এবং হাটিকুমরুল থেকে বগুড়া মহাসড়কের চান্দাইকোনা পর্যন্ত সকাল থেকেই থেমে থেমে যানজট রয়েছে। অধিক যানবাহনের চাপের কারণে বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যানজটের তীব্রতা কিছুটা বেড়ে যাচ্ছে। ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশ যানজট নিরসনে কাজ করছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীত করার কাজ চলমান থাকায় যানবাহনকে ধীরগতিতে চলতে হচ্ছে। মহাসড়কের কড্ডার মোড় এলাকায় একটি উড়ালসড়কের নির্মাণকাজ চলমান থাকায় সেখানে যানবাহনের গতি কমাতে হয়। এ ছাড়া পুরোনো ও জরাজীর্ণ নলকা সেতুর কিছুটা সংস্কার করা হলেও এখনো সেখানে ধীরগতিতে যানবাহন পারাপার করার কারণে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে উত্তরাঞ্চলের যাত্রীদের। সেতুটির পাশেই আরেকটি সেতুর নির্মাণকাজ চলমান থাকায় এর স্থায়ীভাবে সংস্কার করা হচ্ছে না। এসব কারণে এই মহাসড়কে ঈদের সময় অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে বাড়তে পারে যানজটের ভয়াবহতা।

default-image

ঢাকা থেকে নাটোরগামী ট্রাকচালক আবু হেলাল বলেন, ‘আমরা এই বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়ক নিয়ে অনেক চিন্তিত থাকি। কারণ, ঢাকা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত কিছুটা যানজট থাকলেও ভালোভাবেই এসেছি। কিন্তু সেতু পার হওয়ার পর থেকেই থেমে থেমে যানজট লেগেই আছে। মহাসড়কটিতে উন্নয়নকাজ চলমান থাকায় এই যানজট দীর্ঘ হচ্ছে।’

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজাহান আলী বলেন, রাজশাহী, পাবনা ও বগুড়া—তিনটি রুটের গাড়ি বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কে প্রবেশ করে। এ কারণে মহাসড়কটিতে সব সময়ই চাপ থাকে। যার ফলে এই ২২ কিলোমিটার মহসড়কে থেমে থেমে যানজট রয়েছে। নলকা সেতু ও হাটিকুমরুল গোলচত্বরের পূর্বপাশের ছোট সেতুটি মহাসড়কের তুলনায় বেশি সরু হওয়ায় গাড়ির গতি কমাতে হচ্ছে। এ ছাড়া মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীতকরণের উন্নয়নকাজ চলমান থাকায় যানবাহনের ধীরগতির কারণে থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হয়।

চার লেনে উন্নীতকরণের কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মীর আক্তার হোসেন লিমিটেডের প্রকৌশলী আবদুল মান্নান প্রথম আলোকে বলেন, ঈদের সময় মহাসড়কটিতে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপের কথা চিন্তা করে চলমান উন্নয়নকাজে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো বিটুমিন–পাথর মিশিয়ে সাময়িক সময়ের জন্য সচল করা হয়েছে। আশা করা যায়, চলমান উন্নয়নকাজের জন্য মহাসড়কে কোনো যানজট হবে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন