default-image

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলায় বোনের বাড়িতে বেড়াতে এসে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত যুবকের স্বজনদের দাবি, ওই যুবক অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা গেছেন। তবে পুলিশ বলছে, মৃত ব্যক্তির শরীরের কোথাও আগুনে পোড়ার চিহ্ন নেই। এটি হত্যাকাণ্ড হতে পারে।

নিহত যুবকের নাম মো. মিলন হাওলাদার (৪২)। তিনি শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার চাদনীপুর গ্রামের রুস্তম হাওলাদারর ছেলে।

নিহত যুবকের স্বজনদের বরাত দিয়ে পুলিশ ও শ্রীনগর ফায়ার স্টেশনের সদস্যরা জানান, এক সপ্তাহ আগে মিলন সিরাজদিখান উপজেলার বালুচর ইউনিয়নের চরপানিয়া গ্রামে তাঁর ভগ্নিপতি বিল্লাল মাতবরের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। গতকাল সোমবার রাতে খাওয়াদাওয়া শেষে মিলন একাই একটি ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। রাত দুইটার দিকে তাঁর ঘরে আগুন জ্বলতে শুরু করে। পরে স্বজনেরা ও স্থানীয় লোকজন এসে আগুন নেভান। এ সময় গুরুতর অবস্থায় স্বজনেরা তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

নিহত যুবকের স্বজনদের দাবি, ওই যুবক অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা গেছেন। তবে পুলিশ বলছে, মৃত ব্যক্তির শরীরের কোথাও আগুনে পোড়ার চিহ্ন নেই। এটি হত্যাকাণ্ড হতে পারে।

শ্রীনগর ফায়ার সার্ভিসর স্টেশন কর্মকর্তা দেওয়ান আজাদ হোসেন বলেন, ‘সকাল সাতটার দিকে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। আগুনে ঘরের কিছু অংশ পুড়েছে। ঘরের ভেতর মশার কয়েল পাওয়া গেছে।’

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম জালালউদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘শুনেছি সকাল ১০টার দিকে ওই যুবক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। পুলিশ হাসপাতালে গেছে। তবে মৃত ব্যক্তির শরীরের কোথাও আগুনে পোড়ার চিহ্ন নেই। ধারণা করা হচ্ছে হত্যাকাণ্ড হতে পারে। লাশের ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ঘটনা তদন্ত করা হচ্ছে।’

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন