default-image

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় বেলুনে গ্যাস ভরার সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে চার বেলুন বিক্রেতা ও এক পথচারী কিশোর আহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে এক বেলুন বিক্রেতার ডান পা হাটু থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। আজ শনিবার দুপুরে উপজেলার তেঁতুলিয়া চৌরাস্তা বাজারের বাসস্ট্যান্ড–সংলগ্ন একটি দোকানে এ ঘটনা ঘটে।

আহত ব্যক্তিরা হলেন গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ এলাকার ইউনুস আলী (৩৮), ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার রহমতপুর এলাকার সাব্বির (২২), নওগাঁ সদর উপজেলার রাব্বি (২৫), ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈল এলাকার হাফিজুল ইসলাম (২৬) এবং তেঁতুলিয়া উপজেলা সদরের কিশোর মো. ফয়সাল (১৪)। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁদের পাঁচজনকেই রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

বিস্ফোরণের পর পুলিশ ও তেঁতুলিয়া ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা স্থানীয় ব্যক্তিদের সহায়তায় আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে প্রথমে তেঁতুলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে তাঁদের অবস্থার অবনতি হলে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানেও তাঁদের অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। এ সময় তেঁতুলিয়ার আহত কিশোর ফয়সালকে তার পরিবারের লোকজন রংপুরে নিয়ে গেলেও অপর চারজন বেলুন বিক্রেতার কোনো স্বজন হাসপাতালে উপস্থিত না থাকায় তাঁরা জরুরি বিভাগেই ছিলেন।

পরে গণমাধ্যমকর্মীদের মাধ্যমে খবর পেয়ে পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন হাসপাতালে ছুটে যান। তিনি পুলিশের সহায়তায় আহত ব্যক্তিদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। এ সময় তিনি আহত ব্যক্তিদের সঙ্গে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকেও পাঠান এবং চিকিৎসার খরচ বহনের ব্যবস্থা করেন।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা বেলুন বিক্রেতাদের ছয়জনের একটি দল তেঁতুলিয়া উপজেলা শহরের চৌরাস্তা বাজারে আবদুর রহিম নামের এক ব্যক্তির একটি দোকান ভাড়া নিয়ে থাকতেন। সেখান থেকে তাঁরা বেলুনে গ্যাস ভর্তি করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে বেলুন বিক্রি করতেন।

আহত ব্যক্তিদের রংপুরে নিয়ে চিকিৎসা করানোর কোনো লোক না থাকায় প্রশাসন থেকে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিয়েছে। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলাউদ্দিনকে রোগীদের সঙ্গে পাঠানো হয়েছে।
সাবিনা ইয়াসমি, জেলা প্রশাসক, পঞ্চগড়

আজ দুপুরে তাঁরা ওই দোকানে বেলুনে গ্যাস ভরছিলেন। এ সময় বিকট শব্দে গ্যাসের সিলিন্ডারটি বিস্ফোরিত হয়। এতে বেলুন বিক্রেতা চারজন ও দোকানের পাশ দিয়ে যাওয়া স্থানীয় কিশোর গুরুতর আহত হন। বিস্ফোরণের সময় বিকট শব্দে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের চিকিৎসক কাওসার আহম্মেদ বলেন, আহত পাঁচজনের অবস্থাই গুরুতর। তাঁদের মধ্যে একজনের ডান পা হাটু পর্যন্ত বিচ্ছিন্ন হয়ে উড়ে গেছে। অন্যদের বেশির ভাগেরই চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থান ঝলসে গেছে।

তেঁতুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সায়েম মিয়া বলেন, সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত ব্যক্তিরা বেলুন বিক্রেতা। এ ছাড়া এ ঘটনায় স্থানীয় এক কিশোর আহত হয়েছে। প্রাথমিকভাবে বিষয়টি দুর্ঘটনা মনে হলেও তাঁরা তদন্ত করছে।

জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, আহত ব্যক্তিদের রংপুরে নিয়ে চিকিৎসা করানোর কোনো লোক না থাকায় প্রশাসন থেকে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিয়েছে। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলাউদ্দিনকে রোগীদের সঙ্গে পাঠানো হয়েছে। তাঁদের চিকিৎসার খরচও প্রশাসনের পক্ষ থেকে চালানো হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন