বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের কাছে প্রজ্ঞাপনের একটি অনুলিপি পাঠানো হয়েছে। এ প্রজ্ঞাপনের কপি সংশ্লিষ্ট পৌর মেয়রের কাছে পাঠিয়ে নিশ্চিত করে স্থানীয় সরকার বিভাগকে অবহিত করতেও জেলা প্রশাসককে অনুরোধ জানানো হয়। সোমবার সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে যোগাযোগ করা হলে জেলা প্রশাসক প্রথম আলোকে বলেন, প্রজ্ঞাপনের কপি এখনো তাঁর হাতে পৌঁছেনি। তবে ই-মেইল চেক করে দেখবেন, সেখানে এসেছে কি না। প্রজ্ঞাপন হাতে পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।

আমিনুল ইসলাম চলতি বছরের ৩০ জানুয়ারি পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হন। দলের বিদ্রোহী হওয়ায় পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে তিনি বহিষ্কৃত হন। বিদেশে অবস্থান করায় বরখাস্তকৃত মেয়র আমিনুল ইসলামের সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র হেলালুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, মেয়র আমিনুল ইসলাম গত ১০ নভেম্বর যুক্তরাজ্য সফরে যান। এর পর থেকে তিনি ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্বে আছেন।

এর আগে আমিনুল ইসলাম যুক্তরাজ্য সফরে গিয়ে গত ২৪ নভেম্বর রাতে প্রবাসীদের সংগঠন গ্রেটার সিলেট ডেভেলপমেন্ট ফোরাম আয়োজিত এক সভায় বক্তব্য দেন। সেখানে বক্তৃতায় তিনি মন্ত্রী-সচিবদের ‘৫ পার্সেন্ট’ দিয়ে পৌরসভার উন্নয়নমূলক ফান্ড আনতে হয় বলে মন্তব্য করেন। এ ছাড়া তিনি আওয়ামী লীগ এবং নির্বাচন নিয়েও বিভিন্ন কথা বলেন। এই বক্তৃতায় একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এর পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন