বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় স্থানীয় লোকজন বিক্ষুব্ধ হয়ে প্রায় দুই ঘণ্টা সিলেট-তামাবিল মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। পরে ঘটনাস্থলে গোয়াইনঘাট থানা-পুলিশ ও তামাবিল হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা গিয়ে বিক্ষুব্ধ লোকজনকে শান্ত করে যান চলাচল স্বাভাবিক করেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শিশু ওলি উল্লাহ বাবার সঙ্গে বাড়িতে আসা অতিথিকে বিদায় জানাতে বুধবার বিকেলে সিলেট-তামাবিল মহাসড়কে গিয়েছিল। অতিথিরা বাসে উঠে চলে যাওয়ার পর সে বাবার হাত ধরে বাড়ি ফিরছিল। এ সময় হঠাৎই বাবার হাত ফসকে গেলে দৌড় দিয়ে সড়ক পার হতে গেলে জাফলং থেকে আসা একটি ট্রাক তাকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
এদিকে ট্রাকের ধাক্কায় শিশুর মৃত্যুর খবর শুনে স্থানীয় লোকজন সিলেট-তামাবিল মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। এ সময় সড়কের দুই পাশে মাল ও যাত্রীবোঝাই বেশ কয়েকটি যানবাহন আটকা পড়ে। খবর পেয়ে গোয়াইনঘাট থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বিক্ষুব্ধ লোকজনকে সান্ত্বনা দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং যান চলাচল স্বাভাবিক করে।

গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল আহাদ বলেন, দুর্ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন যান চলাচল বন্ধ করে দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ট্রাকচালককে আটক ও বিক্ষুব্ধ লোকজনকে শান্ত করে। সন্ধ্যা ছয়টা থেকে সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন