বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফেডারেশনের সিলেট বিভাগীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবু সরকার। তিনি বলেন, ‘আমাদের দাবিগুলো বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা আন্দোলনের পথ থেকে সরে এসেছি। আগামী ৫ জানুয়ারির মধ্যে পর্যায়ক্রমে দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। ওই সময়ের মধ্যে দাবি বাস্তবায়িত না হলে ফের আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে।’

বৈঠকে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ছাড়াও সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মেদসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ শ্রমিক ও মালিক সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রোববার বিকেলে পাঁচ দফা দাবিতে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ডাক দেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের নেতারা।

ফেডারেশনের দাবিগুলো হলো জেলা অটোটেম্পো, অটোরিকশা চালক শ্রমিক জোটের ত্রিবার্ষিক নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার ব্যবস্থা গ্রহণ; প্রহসনের নির্বাচন ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ঘোষিত কমিটি বাতিল ও মনোনয়ন ফি বাবদ আদায় করা টাকা ফেরত দেওয়া; সিলেট আঞ্চলিক শ্রম দপ্তরের উপপরিচালককে প্রত্যাহার; জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন নেতাদের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহার; ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশের হয়রানি বন্ধ; মেয়াদোত্তীর্ণ শেরপুর সেতু, শেওলা সেতু, লামাকাজী সেতু, শাহপরান সেতু ও ফেঞ্চুগঞ্জ সেতু থেকে টোল আদায় বন্ধ; নগরের চৌহাট্টাসহ বিভিন্ন স্থানে কার, মাইক্রোবাস, লেগুনা, সিএনজিচালিত অটোরিকশার পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা।

সোমবার কর্মসূচি চলাকালে সকাল ছয়টার পর থেকে সিলেটের প্রবেশ মুখসহ বিভিন্ন মোড়ে পরিবহনশ্রমিকেরা অবস্থান নিয়ে যানবাহন চলাচলে বাধা দেন। ধর্মঘটের কারণে সিলেট বিভাগে বাস, মিনিবাস, ট্রাক, লরি, গাড়ি-মাইক্রোবাস, সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ ছিল। তবে শহরের অভ্যন্তরে প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেল ও রিকশা চলাচল করেছে। শহরের প্রবেশমুখগুলোতে যানবাহন এলোপাতাড়িভাবে রেখে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছিলেন পরিবহনশ্রমিকেরা। বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান নিয়ে ব্যক্তিগত যানবাহন ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং পণ্যবাহী যানবাহন আটকে বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়ান পরিবহনশ্রমিকেরা।

গণপরিবহন বন্ধ থাকায় দিনভর ভোগান্তি পোহাতে হয় যাত্রীদের। অনেকে জরুরি কাজে দূরপাল্লা যাতায়াতের জন্য অতিরিক্ত ভাড়ায় মোটরসাইকেলে চুক্তিতে যাতায়াত করেছেন। অনেক যাত্রী আবার বাস টার্মিনাল থেকে যানবাহন না পেয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন