default-image

সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম মিঞার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষায় তাঁর ফল পজিটিভ আসে। নমুনা জমা দিয়ে তিনি সিলেট সফরে থাকা দুই মন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেন।

বিজ্ঞাপন

শনাক্তের দিন গতকাল এবং এর আগের দিন বুধবার ওসি সেলিম মিঞা সিলেট সফরে থাকা পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন ও তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন। গতকাল রাতে তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায়ও ছিলেন।

বুধবার দুপুরে ওসি সেলিম মিঞা শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছিলেন।

সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসির করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোতির্ময় সরকার।

নমুনা দেওয়ার পরও দুই মন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করা প্রসঙ্গে সিলেট নগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) আজবাহার আলী শেখ প্রথম আলোকে বলেন, ‘গতকাল রাতে জানা গেছে, ওসির করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এরপর থেকে তিনি আইসোলেশনে রয়েছেন। তবে কবে তিনি নমুনা দিয়েছিলেন, সেটি আমার জানা নেই। নমুনা তিনি ব্যক্তিগতভাবে দিয়েছেন। এটি আমাদের “অফিশিয়ালি” জানানো হয়নি।’ নমুনা দেওয়ার ব্যাপারে ওসির সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে মো. সেলিম মিঞার বক্তব্য জানতে তাঁর ব্যবহৃত মুঠোফোনে কয়েক দফা কল দেওয়া হলেও তিনি ধরেননি।

সিলেট নগর পুলিশের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, যাঁরা করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা দেন, তাঁরা আইসোলেশনে থাকবেন, এটিই নিয়ম। এর জন্য নির্দেশনাও রয়েছে। কিন্তু তাঁর ক্ষেত্রে (ওসি সেলিম) সেটি মানা হয়নি। এ ক্ষেত্রে তাঁর দায় এড়ানোর কোনো সুযোগ নেই।

সিলেট কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সৌমেন মিত্র প্রথম আলোকে বলেন, কোতোয়ালি থানার ওসির করোনাভাইরাসের উপসর্গ ছিল না। গতকাল রাতে তাঁর নমুনা পরীক্ষার ফল পজিটিভ আসার পর তিনি নিজ বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন।

এর আগে গত সোমবার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয় সিলেট নগর পুলিশের কমিশনার গোলাম কিবরিয়ার। এরপর থেকে তিনি আইসোলেশনে রয়েছেন।

মন্তব্য পড়ুন 0