default-image

করোনাভাইরাসের ২ লাখ ২৮ হাজার ডোজ টিকা সিলেটে পৌঁছেছে। আজ রোববার বেলা সোয়া ১১টার দিকে সেরামের বাংলাদেশি অংশীদার বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের একটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ভ্যানে ১৯ কার্টনে করে টিকাগুলো সিলেট সিভিল সার্জন কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। পরে টিকাগুলো সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মণ্ডল আনুষ্ঠানিকভাবে বুঝে নেন।

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ভারত থেকে বাংলাদেশে দেওয়া হয়েছিল টিকাগুলো। টিকাগুলো যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা, যা বাজারজাত করছে সেরাম ইনস্টিটিউট। সেরামের অংশীদার বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সিলেটে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ভ্যানে আনা ১৯ কার্টন টিকার মধ্যে প্রতিটি কার্টনে ১ হাজার ২০০টি ভায়াল রয়েছে। প্রতি ভায়ালে ১০ ডোজ করে টিকা রয়েছে। সে হিসাবে ২ লাখ ২৮ হাজার ডোজ টিকা এসেছে সিলেটে। টিকাগুলো সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ইপিআই ভবনে সংরক্ষণ করা হয়েছে। সিলেট জেলায় টিকাদানের জন্য ১৫৩টি সেন্টার নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৫টি সেন্টার সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকায় এবং ১২৮টি সেন্টার সিভিল সার্জনের অন্তর্ভুক্ত বিভিন্ন উপজেলা পর্যায়ে।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, টিকাদানের জন্য ৭২ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা প্রতিটি টিকাদান কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করবেন।
সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মণ্ডল বলেন, ‘সিলেটে ২ লাখ ২৮ হাজার ডোজ টিকা এসে পৌঁছেছে। আমরা টিকাদানের জন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছি। দ্বিতীয় দফায় আগামী ৩ ও ৪ ফেব্রুয়ারি আরেক দফা প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। আশা করছি, ৭ ফেব্রুয়ারি টিকাদান কেন্দ্রগুলোয় টিকা দেওয়া শুরু হবে।’

প্রেমানন্দ মণ্ডল আরও বলেন, আগামী মাসে টিকার দ্বিতীয় চালান আসার কথা রয়েছে। তবে নির্দিষ্ট করে কত তারিখে টিকা আসবে, সেটি বলা যাচ্ছে না। টিকা দেওয়ার জন্য তালিকা করা হয়েছে। তবে তালিকায় কতজন আছেন, সেটি বলা যাচ্ছে না। টিকায় স্বাস্থ্যকর্মীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন