default-image

ঢাকা থেকে সিলেটে আসার পর সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে গতকাল রোববার রাতে গোলাপগঞ্জের বাড়িতে ফিরছিলেন ব্যবসায়ী এহতেশামুল হক (৪২)। বাড়ি পৌঁছানোর আগে গোলাপগঞ্জের ফুলবাড়ি হাজীপুরে দুর্বৃত্তরা তাঁর পথরোধ করে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান। পরে আহত অবস্থায় অটোরিকশাচালক তাঁকে বাড়িতে নিয়ে যান। পরিবারের লোকজন তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত এহতেশামুলের গোলাপগঞ্জের হেতিমগঞ্জ বাজারে চালের ব্যবসা আছে। তিনি ফুলবাড়ি হাজীপুর গ্রামের বাসিন্দা।

নিহত ব্যক্তির পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে সড়কে কলাগাছ ফেলে এহতেশামুলকে বহনকারী অটোরিকশার গতিরোধ করে দুর্বৃত্তরা। দুর্বৃত্তদের সঙ্গে এহতেশামুলের ধস্তাধস্তি হয়। দুর্বৃত্তরা এহতেশামুলকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান। পরে সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক তাঁকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে যান। সেখান থেকে পরিবারের লোকজন প্রাইভেট কারে করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত ব্যক্তির বড় ভাই বদরুল হক সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালকের বরাত দিয়ে বলেন, দুর্বৃত্তরা তাঁর ভাই ও অটোরিকশাচালকের মুঠোফোন ও টাকাপয়সা নিয়ে যায়।

গোলাপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশিদ চৌধুরী বলেন, ওই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুজনকে থানায় নেওয়া হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। দোষী ব্যক্তিদের ধরতে পুলিশ তৎপর।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন