বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও নিহত ব্যক্তির পরিবারের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, আরশ আলী গরু কেনাবেচার ব্যবসা করতেন। গতকাল বুধবার দুপুরে তিনি ব্যবসার কাজে শ্বশুরবাড়ি থেকে বের হন। এর পর থেকে তিনি বাড়ি ফেরেননি। গতকাল রাতেও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ হয়েছিল। সে সময় তিনি পরিবারের সদস্যদের জানিয়েছিলেন বিশ্বনাথ বাজারে অবস্থান করছেন। রাতে বাড়ি ফিরবেন। তবে তিনি গতকাল রাতে বাড়ি ফেরেননি। আজ ভোরে মন্ডলকাপন গ্রামের মতিন মিয়ার বাড়ির প্রধান ফটকে ঝুলন্ত অবস্থায় আরশ আলীকে দেখতে পান স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশ সকাল ১০টায় লাশ উদ্ধার করে। মতিন মিয়া তাঁর ব্যবসায়িক অংশীদার।

আরশ আলীর শ্যালক ময়নুল ইসলাম বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে আরশ আলী গরু কেনাবেচার ব্যবসা করেন। প্রায় রাতে বাড়ি ফিরতেন না। গতকাল দুপুরে বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর তিনি আর বাড়ি ফেরেননি। পরে স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে আমরা তাঁর লাশ দেখতে পাই। তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।’

বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গাজী আতাউর রহমান আজ দুপুরে বলেন, ব্যবসায়ীর মৃত্যুর ঘটনায় দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন