বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সভায় সংগঠনটির সভাপতি মো. মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের আহমদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় বক্তৃতা দেন খান মো. ফরিদ উদ্দিন, নুরুল ওয়াছেহ আলতাফী, হুমায়ুন আহমেদ, সায়েম আহমেদ, জুবের আহমেদ চৌধুরী, রিয়াশাদ আজিম হক, সিরাজুল হোসেন আহমদ, সাহেদ আহমদ চৌধুরী, এনামুল হক রুবেল, রিয়াদ উদ্দিন, মনিরুল ইসলাম, আখতার ফারুক, লোকমান আহমদ মাছুম, আফজাল আহমদ, আবদুল কুদ্দুস তালুকদার, আবদুল মুমিন, ফয়জুর রহমান, রফিকুল ইসলাম, ইউনুস আলী, নাদিম রহমান, জহির উদ্দিন মো. বাবর, মশিউর রহমান, মো. ছানাওয়ার আলী প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, সিলেটে প্রতিদিন প্রায় ১০ লাখ লিটার জ্বালানি তেলের চাহিদা আছে। এর মধ্যে বর্তমানে সরবরাহ আছে প্রায় এক থেকে দেড় লাখ লিটার। বর্তমানে যে তেল সরবরাহ হচ্ছে, তা সিলেটের চারটি ডিপোর মধ্যে ভাগ করে নিতে হয়। এর জন্য কোনো প্রতিষ্ঠানই তাঁদের গ্রাহকের চাহিদা পূরণ করতে পারছেন না। তাঁদের ধারণা দেশে তেল সংকট না থাকা সত্ত্বেও কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে সরকারের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করা ও ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতেই কৃত্রিমভাবে এই সংকট সৃষ্টি করা হচ্ছে। এ জন্য জ্বালানি তেল সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান পদ্মা, মেঘনা, যমুনা কোম্পানির জেলা বিপণন কর্মকর্তারা দায়ী। দায়ী ব্যক্তিদের অপসারণও দাবি করেন তাঁরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন