পুলিশের একটি সূত্র জানায়, তিনজনের লাশ ও গৃহকর্তা হিফজুরকে আহত অবস্থায় উদ্ধারের ঘটনায় পূর্বশত্রুতার বিষয় সামনে নিয়ে তদন্ত করা হয়। তবে সেখানে হত্যাকাণ্ডের মতো ঘটনা ঘটার কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। পারিবারিক কলহ নিয়েও তদন্ত করছিল পুলিশ। এতে কিছু রহস্যের সন্ধান পাওয়া যায়। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি বঁটি হিফজুরের ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। সেই সঙ্গে হিফজুরের আচরণ এবং তাঁকে যে অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে, সেটি অনেকটা সন্দেহজনক।

ঘটনা তদন্তের সঙ্গে সম্পৃক্ত পুলিশের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, পুলিশ দুটি দিক নিয়ে তদন্ত করেছে। এর মধ্যে একটি জমিজমা নিয়ে বিরোধ এবং অন্যটি স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক বিরোধ। এ জন্য কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ ও নজরদারিতে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে একটি দিকে অনেকটা অগ্রসর হয়েছে। পুলিশের ধারণা, হিফজুর স্ত্রীর সঙ্গে মনোমালিন্যের জেরে দুই সন্তান ও স্ত্রীকে খুন করে থাকতে পারেন।

ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, হিফজুরের শরীরে আঘাতগুলো তেমন গুরুতর নয়। এ ব্যাপারে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাঁর মাথা ও পায়ের আঘাতগুলো তিনি নিজে নিজেই করতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়া ঘরের দরজা ভাঙার কোনো নিশানা মেলেনি। বর্তমানে হিফজুর কেবিনে আছেন। সেখানে তাঁর সঙ্গে বিভিন্ন কৌশলে কথা বলার চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে তিনি সেটি এড়িয়ে গিয়ে অসংলগ্ন কথা বলছেন।

ঘটনার দিন ভোরে ফোন করেছিলেন হিফজুর

গতকাল ভোর পাঁচটা থেকে সাড়ে পাঁচটার দিকে হিফজুর তাঁর ব্যবহৃত মুঠোফোন দিয়ে তিনজনকে ফোন দিয়েছিলেন। এর মধ্যে দুজন স্থানীয় বাজারে পান-সুপারির ব্যবসা করেন। অন্যজন ফয়েজ মিয়া (৪০)। ফয়েজের বিয়েতে উকিল বাবা ছিলেন হিফজুর রহমান।

পুলিশ বলছে, ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে ফয়েজ মিয়াকে ফোন দিয়ে কিছু টাকা নিয়ে বাড়ি আসতে বলেছিলেন হিফজুর। ওই সময় তিনি চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার কথা বলেছিলেন।

অন্যদিকে স্থানীয় বাজারের ব্যবসায়ী তাজ উদ্দিন ও সোহেলকে ভোর সোয়া পাঁচটা এবং পৌনে ছয়টার দিকে ফোন দিয়েছিলেন হিফজুর। ওই সময় তিনি অসুস্থ থাকায় পান-সুপারি দিতে পারবেন না বলে জানিয়েছিলেন। তাঁদের সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ।

সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) মো. লুৎফর রহমান বলেন, এ ঘটনায় গতকাল বুধবার রাতে মামলা হয়েছে। নিহত আলিমা বেগমের বাবা আইয়ুব আলী বাদী হয়ে মামলাটি করেন। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারকে হস্তান্তর করা হবে।