বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, আজ সকালে বিমানবন্দরে বহিরাগত প্রবেশ নিয়ে এক কর্মচারীর সঙ্গে আনসার সদস্য তাহেরুল ইসলামের বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। এতে তাহেরুল ইসলাম মাথায় আঘাত পান। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে আনসার সদস্যরা একত্র হয়ে বিমানবন্দরের ওই কর্মচারীর খোঁজ করতে শুরু করেন। এতে বিমানবন্দরে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে বিমানবন্দরে কর্মরত অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য এবং বিমানবন্দরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আনসার সদস্যদের বুঝিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

এ বিষয়ে জানতে সিলেট বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. মইনুল জাকিরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) বি এম আশরাফ উল্যাকে কল করা হলেও তিনি কল কেটে দেন।

সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ বলেন, তিনি ঢাকায় একটি সভায় আছেন। তবে বিমানবন্দরের এক কর্মচারীর সঙ্গে আনসার সদস্যের সাধারণ একটি বিষয় নিয়ে ছোট ঝামেলার বিষয়ে তিনি শুনেছেন। এ ঘটনার জন্য বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ কোনো বিষয়ে সমস্যা হবে না।

সিলেট আনসার ভিডিপি কার্যালয়ের জেলা কমান্ড্যান্ট এনামুল খান বলেন, ‘বিমানবন্দরে নিরাপত্তা–সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে অন্য প্রতিষ্ঠানের সদস্যের সঙ্গে আনসার সদস্যের একটি বিষয় নিয়ে তর্কাতর্কি হয়েছে। এটা আমাদের “ইন্টারনাল”(অভ্যন্তরীণ) বিষয়। এ নিয়ে বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপকের সঙ্গে কথা হয়েছে। বিষয়টি আমরা সমন্বয় করে নেব।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন