বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সিলেট বোর্ডের ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, এই বোর্ডের অধীন ২০১২ সালে সর্বোচ্চ পাসের হার ছিল ৯১ দশমিক ৭৮। এ বছর ওই বছরের রেকর্ড ভেঙে পাসের হার হয়েছে ৯৬ দশমিক ৭৮। গত বছর পাশের হার ছিল ৭৮ দশমিক ৭৯। ২০০১ সালে বোর্ড প্রতিষ্ঠার সময় পাসের হার ছিল ৩৯ দশমিক ০৩, এখন পর্যন্ত এটাই সিলেট বোর্ডের সর্বনিম্ন পাসের হার।

এ বছর সিলেট বোর্ডে ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৫৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ১৫ হাজার ৭০০ জন পাস করেছে। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৮৩৪ জন। গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৪ হাজার ২৬৩ জন। জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতেও এ বছর সিলেট বোর্ড নতুন রেকর্ড করেছে। গত বছরের তুলনায় এবার ৫৭১ জন শিক্ষার্থী বেশি জিপিএ-৫ পেয়েছে। শতভাগ পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও বেড়েছে।

সিলেট বোর্ডের অধীন এবার ১৮৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা শতভাগ পাস করেছে। গতবারের তুলনায় এবার শতভাগ পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বেড়েছে ১৪২টি। এ ছাড়া সিলেট বোর্ডের অধীন শতভাগ ফেল করেছে এমন কোনো প্রতিষ্ঠান নেই।

মানবিকে ভালো ফল

সিলেট বোর্ডে এবার অন্য দুই বিভাগের চেয়ে মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীরা ভালো ফলাফল করেছে। মানবিক বিভাগ থেকে ৮৮ হাজার ৬০৪ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৮৬ হাজার ১৭৭ জন পাস করেছে, পাসের হার ৯৭ দশমিক ২৬। ব্যবসায় শিক্ষার ৯ হাজার ৪৫৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৯ হাজার ৪৬ জন, পাসের হার ৯৫ দশমিক ৬৩। এদিকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পরীক্ষার্থী ছিলেন ২১ হাজার ৪৯০ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ২০ হাজার ৪৭৭ জন, পাসের হার ৯৫ দশমিক ২৯।

জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে এগিয়ে বিজ্ঞান বিভাগ

পাসের হারে মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে থাকলেও জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে এগিয়ে রয়েছে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা। বোর্ডে মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৮৩৪ জন পরীক্ষার্থী। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৪৫৪ জন শিক্ষার্থী। মানবিক বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২২৯ জন এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে ১৫১ জন।

default-image

এগিয়ে মেয়েরা

সিলেট বোর্ডের ফলাফলে দেখা যায়, অংশগ্রহণ, পাসের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্তি-এ তিন বিভাগেই ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা এগিয়ে। সিলেট বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৫৩ জন। এর মধ্যে মেয়ে পরীক্ষার্থী ছিল ৬৬ হাজার ২২১ জন এবং ছেলে পরীক্ষার্থী ছিল ৫৩ হাজার ৩৩২ জন। মেয়ে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে পাস করেছে ৬৪ হাজার ৩১৪ জন, পাসের হার ৯৭ দশমিক ১২। এদিকে ৫১ হাজার ৩৮৬ জন ছেলে পরীক্ষার্থী পাস করেছে। ছেলেদের পাসের হার ৯৬ দশমিক ৩৫।

জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতেও এগিয়ে আছে মেয়ে পরীক্ষার্থীরা। এ বোর্ড থেকে মোট ৪ হাজার ৮৩৪ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে মেয়ে পরীক্ষার্থী সংখ্যা ২ হাজার ৮০৬ জন এবং ছেলে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২ হাজার ২৮ জন।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় সিলেট শিক্ষা বোর্ডের সম্মেলনকক্ষে ফলাফল ঘোষণা করেন বোর্ডের সচিব মো. কবির আহমদ ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অরুন চন্দ্র পাল। এ সময় ফলাফল পর্যালোচনা করে তাঁরা বলেন, সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে পরীক্ষা হওয়ায় এবার ভালো ফলাফল হয়েছে। তিনটি বিষয়ে পরীক্ষায় হওয়ায় শিক্ষার্থীদের মানসিক চাপও কম ছিল। এ ছাড়া শিক্ষার্থীরা এবার পরীক্ষার আগে প্রস্তুতির জন্য সময়ও বেশি পেয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন