বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাইওয়ে পুলিশ সূত্র জানায়, সীতাকুণ্ডের পোর্ট লিংক কনটেইনার ডিপো, ভাটিয়ারী বাজার, বিএম কনটেইনার ডিপো, কেডিএস লজিস্টিক ও বড় দারোগাহাট ওজন স্কেল এলাকায় স্বাভাবিক সময়েও গাড়ি ধীরে চলতে গিয়ে হালকা জট লাগে। ঈদের সময়ে এই পাঁচ জায়গা তাদের ভাবিয়ে তুলছে।

স্থানীয় ব্যক্তিরা বলছেন, তিন দিন ধরে গাড়ির চাপ বেড়ে যাওয়ায় এসব এলাকায় হালকা যানজট ছিল। তবে হাইওয়ে পুলিশ বলছে, গত দুই দিনে গাড়ির অত্যধিক চাপ থাকলেও আজ সকাল থেকে গাড়ির চাপ কিছুটা কমেছে। যার কারণে মহাসড়কের সীতাকুণ্ড অংশে কোথাও যানজট নেই।

গতকাল রাত ১০টার দিকে একটি ওষুধ কোম্পানির মেডিকেল প্রমোশন অফিসার আবদুল আলিম বলেন, তিনি চট্টগ্রাম থেকে সীতাকুণ্ডে ফিরছিলেন। প্রথমে তিনি ভাটিয়ারী বাজারের যানজটে পড়েন। তারপর বাঁশবাড়িয়ার যানজটে আটকা পড়েন বারআউলিয়া থেকে। ১০ কিলোমিটার যানজট এলাকা অতিক্রম করতে তাঁর এক ঘণ্টা লেগে যায়।

বারআউলিয়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, মহাসড়কে এখন কোনো যানজট নেই। স্বাভাবিক নিয়মে গাড়ি চলছে। গতকাল বাঁশবাড়িয়া গরুর বাজার যতক্ষণ ছিল ততক্ষণ যানজট ছিল। রাত ৯টার পর ধীরে ধীরে গাড়ি চলাচল করতে শুরু করে। ওসি বলেন, তিনটি কনটেইনার ডিপো ও ভাটিয়ারী বাজার এলাকায় গাড়িজট যাতে না লাগে, সে জন্য পুলিশের চারটি দল কাজ করছে।

কুমিরা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক ফারুক হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ঈদের সময় যাত্রীবাহী গাড়ির চাপ বেড়ে যায়। বড় দারোগাহাট এলাকায় ওজন স্কেলে মালবাহী গাড়ি পরিমাপের জন্য আলাদা করে ওজন স্কেলে ঢুকানোর সময় যানজট লেগে যায়। যানজট যাতে না লাগে, সেদিকে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন