বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শাহাদাত হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, নলকূপের ভেতর থেকে গ্যাস বের হওয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে তিনি কথা বলবেন।

সম্প্রতি সীতাকুণ্ডের বিভিন্ন স্থানে গ্যাসের অনুসন্ধানে কাজ শুরু করেছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স)। চীনা কোম্পানি সিনোপেকের প্রযুক্তিগত সহযোগিতায় সীতাকুণ্ডের সমুদ্র উপকূল থেকে পাহাড় পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে গ্যাসের অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। বর্তমানে তাদের একটি দল বাড়বকুণ্ড উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে অবস্থান করছে।

সিনোপেকের জনসংযোগ কর্মকর্তা আবদুল কাদের সিকদার প্রথম আলোকে বলেন, নলকূপ দিয়ে বের হওয়া গ্যাসকে তাদের ভাষায় ‘পকেট গ্যাস’ বলা হয়। এ গ্যাস উত্তোলনযোগ্য নয়। সাধারণত পাহাড়ি এলাকায় অথবা কোনো নিচু স্থান ভরাটের পর এ ধরনের গ্যাস দেখা যায়। যে দিক দিয়ে গ্যাস বের হয়, সে দিকটা বন্ধ করে রাখা উচিত বলে জানান তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন