সীতাকুণ্ডে সাগরের উপকূল থেকে যুবকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

লাশ উদ্ধার
প্রতীকী ছবি

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সাগর উপকূল থেকে অজ্ঞাতনামা (৩০) এক যুবকের গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল রোববার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের উত্তর সলিমপুর দাইয়াবাড়ি এলাকা থেকে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। পরে লাশটি তারা ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

তবে লাশটি নোয়াখালীর ভাসানচর থেকে পালাতে গিয়ে নৌকাডুবিতে নিখোঁজ কোনো রোহিঙ্গা যুবকের কি না, নিশ্চিত করে তা বলতে পারেনি পুলিশ।

সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বণিক প্রথম আলোকে বলেন, রোববার রাতে স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. মোস্তাকিম আরজু উপকূলে লাশটি পড়ে থাকার খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে।

এর আগে ১৩ আগস্ট রাতে ভাসানচরের রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবির থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় সাগরে রোহিঙ্গাদের বহনকারী ট্রলার ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়।

পরিদর্শক সুমন বণিক বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, নিহত যুবক পাঁচ-ছয় দিন আগে পানিতে ডুবে মারা যেতে পারেন। রোববার জোয়ারে ওই যুবকের অর্ধগলিত লাশটি উপকূলে ভেসে আসে। তাঁর পরনে হলুদ-কালো রঙের ডোরাকাটা শার্ট ও হাফপ্যান্ট ছিল। লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় সীতাকুণ্ড থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

এর আগে ১৩ আগস্ট দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ভাসানচরের রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবির থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের কাছে বঙ্গোপসাগরে রোহিঙ্গাদের বহনকারী ট্রলার ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়। স্থানীয়ভাবে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, ডুবে যাওয়া ট্রলারটিতে নারী-শিশুসহ ৪১ রোহিঙ্গা ছিল। ১৪ আগস্ট ভোরে জেলেরা ১৪ জনকে উদ্ধার করেন। নিখোঁজ ২৭ জনের মধ্যে ২০ আগস্ট পর্যন্ত চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ ও সীতাকুণ্ড উপকূলে মোট ১৩ রোহিঙ্গার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।