বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১৭ অক্টোবর দোয়ারাবাজার উপজেলার পলিরচর গ্রামের বাসিন্দা আল আমিনকে হত্যা করা হয়। তখন তিনি জাউয়াবাজার ডিগ্রি কলেজে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন। যাতায়াতের অসুবিধার কারণে ছাতক উপজেলার জাউয়াবাজার ইউনিয়নের দেবেরগাঁও গ্রামের সফিক উদ্দিনের বাড়িতে থেকে তিনি পড়াশোনা করতেন। ঘটনার দিন দুপুরে কলেজ প্রাঙ্গণে আল আমিনের সঙ্গে তাঁর সহপাঠী আক্কাস মিয়া, আজিজুল ইসলাম ও সাইদুল হকের ঝগড়া হয়। কলেজের অধ্যক্ষ বিষয়টি পরদিন মীমাংসা করে দেবেন বলে জানান। পরে আল আমিন নিজ বাড়ি দোয়ারাবাজার উপজেলায় যেতে সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়কের বড়কাঁপন এলাকায় গিয়ে টেম্পোর জন্য অপেক্ষা করছিলেন। তখন আক্কাস মিয়া, আজিজুল ইসলাম ও সাইদুল হক সেখানে গিয়ে আল আমিনের ওপর হামলা চালান। এ সময় তাঁকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করা হয়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক আল আমিনকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় আল আমিনের বাবা আনফর আলী ওরফে কাছা মিয়া বাদী হয়ে ওই দিনই আক্কাস মিয়া, আজিজুল ইসলাম ও সাইদুল হককে আসামি করে ছাতক থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। পুলিশ ২০১৭ সালে ৩০ জুন আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। মামলায় আদালতে ২৩ জন সাক্ষ্য দেন।

আজ রায় ঘোষণার সময় আদালতে আসামি সাইদুল হক উপস্থিত ছিলেন। পরে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন