বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল আলম ভুঁইয়া (মোটরসাইকেল), কামাল উদ্দিন (আনারস), আবদুছ ছাত্তার (টেলিফোন), রহমত উল্যাহ (অটোরিকশা), বাটইয়া ইউনিয়নের আনোয়ার হোসেন (মোটরসাইকেল), চাপরাশিরহাট ইউনিয়নের আবু নাছের মোল্লা (মোটরসাইকেল), ইফতেখার উদ্দিন (আনারস), ধানশালিক ইউনিয়নে সাহাব উদ্দিন (আনারস), ঘোষবাগ ইউনিয়নের প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের (অটোরিকশা) পক্ষে তাঁর ভাই জাহাঙ্গীর আলম।

সংবাদ সম্মেলনে ধানশালিক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী সাহাব উদ্দিনের প্রতিনিধি আওয়ামী লীগ নেতা কামাল উদ্দিন বলেন, প্রতিপক্ষ বিভিন্নভাবে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

বাটইয়ার চেয়ারম্যান প্রার্থী আনোয়ার হোসেন বলেন, তাঁর নির্বাচনী ইউনিয়ন পার্শ্ববর্তী সেনবাগ ও কোম্পানীগঞ্জের সীমান্তবর্তী। ওই দুটি উপজেলায় নির্বাচন না থাকায় ওই সব উপজেলার বহিরাগতদের দিয়ে বাটইয়াতে নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের বিষয়ে নানা কথা শোনাচ্ছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তাঁর ইউনিয়নটি সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ বলে উল্লেখ করেন তিনি।

ধানসিঁড়ির চেয়ারম্যান প্রার্থী কামাল উদ্দিন বলেন, কয়েক দিন আগে জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক দলীয় কর্মীদের ‘নির্বাচনে ঠেলি খেলার’ জন্য বলেছেন। তাঁর ওই বক্তব্যের পর সাধারণ ভোটাররা কেন্দ্রে গিয়ে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারবেন কি না, এ নিয়ে সংশয়ের মধ্যে রয়েছেন। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে স্বতন্ত্র প্রার্থীরই জয়ী হবেন।

ধানসিঁড়ির চেয়ারম্যান প্রার্থী রহমত উল্যাহ বলেন, ‘নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের কারণে দেশে তৃতীয় লিঙ্গের লোকও চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাই আমরা চাই, কবিরহাটেও সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের নজির স্থাপন করুক প্রশাসন।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কবিরহাট পৌরসভার সাবেক মেয়র আলা বক্স তাহের। তিনি বলেন, ‘নৌকার সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবাই আওয়ামী লীগের লোক। এবারের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পক্ষে জনজোয়ার দেখা দিয়েছে। প্রশাসন নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেবে বলে আমরা আশাবাদী। আচরণবিধি ভঙ্গের অনেক ঘটনা ঘটেছে। সরকারদলীয় লোকজন স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করছে।’

স্বতন্ত্র প্রার্থীদের দাবি এবং শঙ্কার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান প্রথম আলোকে বলেন, এরই মধ্যে নোয়াখালীর কয়েকটি উপজেলায় সম্পূর্ণ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই সব নির্বাচনের ধারাবাহিকতায় আগামী ২৬ ডিসেম্বরের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন