default-image

অসুস্থ, মুমূর্ষু রোগী কিংবা ঘটনা-দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া লোকজনকে আনা-নেওয়ার কাজে ব্যবহার হয় অ্যাম্বুলেন্স। কিন্তু সেই অ্যাম্বুলেন্সকে ব্যবহার করা হয়েছে নির্বাচনী প্রচারে। অ্যাম্বুলেন্সের বহর ব্যানার লাগিয়ে, সাইরেন বাজিয়ে আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট শহরে মহড়া দিয়েছে।

হঠাৎ ‘সত্যবচনে’ সারা দেশে আলোচিত আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জার পক্ষে এই মহড়া হয়েছে। কাদের মির্জা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই।

নির্বাচনী প্রচারণায় অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে মহড়ার সুযোগ আছে কি না, জানতে চাইলে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সৈয়দ আনোয়ার খালেদ প্রথম আলোকে বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধিতে কোনো ধরনের যানবাহন ব্যবহার করে শো-ডাউন করার সুযোগ নেই। বিষয়টি হয়তো নির্বাচনী কাজে নিয়োজিত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নজরে পড়েনি বলে উল্লেখ করেন এই কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে আবদুল কাদের মির্জা প্রথম আলোকে বলেন, অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে প্রচারণা চালানোর বিষয়টি সম্পর্কে তিনি জানতেন না। যাঁরা করেছেন, তাঁরা তাঁকে না জানিয়েই করেছেন। তিনি খোঁজ নিয়ে তাঁদের নিষেধ করে দেবেন, যাতে এ ধরনের কোনো প্রচারণা চালানো না হয়।

বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিরা জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল চারটার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সড়ক থেকে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ও অ্যাম্বুলেন্স সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২০টি অ্যাম্বুলেন্স জড়ো হয়। প্রতিটি অ্যাম্বুলেন্সের সামনে, পেছনে ও দুই পাশে ছিল আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জার নির্বাচনী পোস্টার ও ব্যানার। এসব অ্যাম্বুলেন্স একযোগে সাইরেন বাজিয়ে পৌর শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। অ্যাম্বুলেন্সের ভেতরে বসা ছিলেন নৌকা মার্কার প্রার্থীর সমর্থকেরা। তাঁরা প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা ও নৌকা প্রতীকের পক্ষে নানা স্লোগানও দিয়েছেন।

হঠাৎ একসঙ্গে অনেকগুলো অ্যাম্বুলেন্সের সাইরেনের শব্দ শুনে লোকজন খানিকটা থমকে দাঁড়ান। পরে অ্যাম্বুলেন্সের বহর দৃষ্টির কাছাকাছি এলে ভুল ভাঙে। অ্যাম্বুলেন্সগুলো সাইরেন বাজিয়ে ও নৌকার পক্ষে মিছিল নিয়ে পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বেড়ায়। ‘সত্যবচনে’ আলোচিত হওয়া একজন প্রার্থীর পক্ষে এভাবে আচরণবিধি ভঙ্গ করে লাগাতার সাইরেন বাজিয়ে অ্যাম্বুলেন্সের মহড়া নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করতে দেখা গেছে কাউকে কাউকে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে সাইরেন বাজিয়ে শো-ডাউন কিংবা মিছিল বের করা কোনোভাবেই কাম্য নয়। কারণ, অ্যাম্বুলেন্সের কাজ তো নির্বাচনী মিছিল, শো-ডাউন করা নয়, মুমূর্ষু রোগীর সেবা করা। যে বা যাঁরাই এটা করেছেন, তাঁরা অতি উৎসাহী হয়েই এসব করেছেন।

মন্তব্য করুন